সোমবার, ১১ জানুয়ারী, ২০১৬

ওটস ও মুগ ডাল দিয়ে মজাদার টিক্কি

ranna banna o beauty tips
ওটস ও মুগ ডাল দিয়ে মজাদার টিক্কি
স্বাস্থ্যকর খাবার হিসেবে ওট খেয়ে থাকেন অনেকেই। বিশেষ করে ব্রেকফাস্টে দুধ এবং ফলের সাথে ওট খাওয়াটা এখন আর অস্বাভাবিক কিছু নয়। কিন্তু দুধ এবং ফল ছাড়া অন্য কিছু দিয়েও যে ওট খাওয়া যায়, এটা অনেকেই ভাবতে পারেন না। কিন্তু ওট আসলে অনেক রান্নাতেই ব্যবহার করা হয়, এমনকি ওট দিয়ে তৈরি করা যেতে পারে দারুন স্বাস্থ্যকর এই টিক্কি। টিক্কি বা টিকিয়া বলতে অনেকে শুধু মাংসের টিকিয়া ভাবেন, কিন্তু এই টিক্কি তৈরিতে ব্যবহার হবে শুধু মুগ ডাল এবং ওট। আসুন, জেনে নেই ঝটপট এই রেসিপিটি।
উপকরণ

-   আধা কাপ মুগ ডাল
-   আধা কাপ কুইক কুকিং রোলড ওটস
-   ২ টেবিল চামচ দই
-   ৩ টেবিল চামচ পিঁয়াজ মিহি কুচি
-   আধা চা চামচ কাঁচামরিচ কুচি
-   ২ চা চামচ চাট মশলা
-   ২ চা চামচ মরিচ গুঁড়ো
-   সিকি চা চামচ গরম মশলা গুঁড়ো
-   সিকি চা চামচ হলুদ গুঁড়ো
-   ১ চা চামচ আদা রসুন বাটা
-   ২ টেবিল চামচ ধনেপাতা কুচি
-   লবন স্বাদমতো
-   ২ চা চামচ তেল
প্রণালী

১) ভালো করে ধুয়ে এক কাপ পানিতে সেদ্ধ করে নিন মুগ ডাল। সবটা পানি শুকিয়ে যাবে এবং ডাল নরম হয়ে যাবে। পানি থাকলে সেটা ঝরিয়ে ডালটুকু ব্লেন্ড করে পেস্ট তৈরি করে নিন। তবে বেশি মিহি পেস্ট করার দরকার নেই।
২) একটা বোলে এই ডালের পেস্ট নিন। এর সাথে বাকি সব উপকরণ মিশিয়ে নিন। মেশানো হয়ে গেলে এই মিশ্রণ থেকে ছোট ছোট টিক্কি তৈরি করে নিন। মোটামুটি ১২টার মতো হবে।
৩) একটা নন-স্টিক কড়াই গরম করে নিন। এতে আধা চা চামচ তেল দিন। তেল গরম হলে এতে ভেজে নিন টিক্কিগুলো। দুপাশে সোনালি করে ভেজে নিন। তেল শুকিয়ে গেলে অল্প করে তেল দিতে পারেন।
ব্যাস, তৈরি হয়ে গেলো সুস্বাদু এবং স্বাস্থ্যকর মুগ ডাল এবং ওট টিক্কি। গরম গরম পরিবেশন করতে পারেন যে কোনো চাটনি বা সসের সাথে। শীতের বিকেলে চায়ের সাথে দারুন মানিয়ে যাবে।

দারুণ সুস্বাদু চিকেন রেশমি কাবাব

ranna banna o beauty tips
দারুণ সুস্বাদু চিকেন রেশমি কাবাব
শীতকাল মানেই কাবাব খাবার ধুম। তবে হ্যাঁ, কাবাবে কিন্তু অনেকটাই ঝাল মশলা থাকে। যারা মশলা কম দিয়ে কাবাব খেতে চান, তাঁদের জন্য দারুণ একটি অপশন হচ্ছে চিকেন রেশমি কাবাব। চলুন, জেনে নিই জুরানা মাসুদের রেসিপি।  
উপকরণ:  
  • একটি মুরগির বুকের মাংস ৫০০ গ্রাম, পানি ছাড়া টক দই ৪ টে চামচ
  • কাজু বাদাম বাটা ১ টে চামচ
  • ফ্রেশ ক্রিম ১ টে চামচ 
  • আদা বাটা ১/২ চা চামচ 
  • রসুন বাটা ১/২ চামচ, তেল ৪ টে চামচ  লবন 
  • চিনি ২ চা চামচ 
গুঁড়ো মসলা তৈরি করতে লাগবে:  
  • ভাজা জিরা গুঁড়ো ১/২ চা চামচ
  • ভাজা ধনে গুঁড়ো ১/২ চা চামচ
  • ভাজা কাবাব চিনি
  • জায়ফল ও জয়ত্রি গুঁড়ো একসাথে ১/২ চা চামচ
  • সাদা গোলমরিচ গুঁড়ো এক চা চামচ
  • কাবাব মসলা পাউডার ১/২ চা চামচ (ইচ্ছা) 
অন্যান্য উপকরন: 
  • বাশের স্টিক ৪-৫ টি
  • কয়লা ১-২ টুকরা
  • ঘি ১ চা চামচ
প্রনালি:  
মাংস পাতলা কিউব করে কেটে সব পানি মুছে সব উপকরন দিয়ে ম্যারিনেট করুন ২৪ ঘন্টা রেফ্রিজারেটরে। -বাশের স্টিক গুলো হালকা গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন ২০ মি। -কাবাবে স্মোকি ফ্লেবার আনার জন্য গ্যাসের উপর এক টুকরা কয়লা জ্বালিয়ে বাটিতে রাখুন,তার উপর ১ চা চামচ ঘি দিয়ে ম্যারিনেট করা মাংসের বাটির মধ্যে রেখে কিছুক্ষন ঢেকে রাখুন। -ঘি স্মোকি ফ্লেবার মাংসে ছড়িয়ে দিবে। এবার মাংস টুকরা কাঠিতে গেঁথে নিন।উপরে তেল ব্রাশ করে নিন। -বেকিং ট্রেতে ফাকা করে রাখুন। ২০০ ডিগ্রি সে এ প্রিহিটেড ওভেনে ২০ মি বেক করুন। -১০ মি পর একবার উল্টে দিবেন। -ওভেনে broiler option থাকলে আরো ৫-৬ মি broiled করে নিন। না থাকলে আগুনে ঝলশে নিন। -ওভেন থেকে বের করে গরম গরম পরিবেশন করুন।   টিপস:  মাংস ম্যারিনেট করার আগে অবশ্যই পানি মুছে নিতে হবে না হয় ম্যারিনেশন কাজ করে না। মাংসের পানি মুছে না নিলে মাংস পানি ছেড়ে দেয় ও ভিতর ড্রাই হয়ে যায়। 

রবিবার, ১০ জানুয়ারী, ২০১৬

মজাদার নাস্তায় নুডুলস কাটলেট

ranna banna o beauty tips
মজাদার নাস্তায় নুডুলস কাটলেট
চপ কিংবা কাটলেট মানে আলু থাকবেই। তাইনা? কিন্তু, আলু ছাড়াও যে চপ কিংবা কাটলেট বানানো যায়, সেটা কখনো চিন্তা করেছেন কি? আজ বিকেলে নাস্তার জন্য বানিয়ে ফেলুন সেইরকমই একটি ডিশ- আলু ছাড়া কাটলেট। চলুন, জেনে নিই বীথি জগলুলের রেসিপি।   
 যা প্রয়োজন 
ইনস্ট্যান্ট নুডুলস- ১ প্যাকেট
 ক্যানড মটর- ১ ক্যান 
বেসন- ২ টে চামচ 
জিরা গুঁড়া- ১ চা চামচ 
গরম মসলা গুঁড়া- ১/২ চা চামচ হ
লুদ গুঁড়া- সামান্য 
ধনেপাতা কুচি
বেশ খানিকটা ব্রেড ক্রাম্বস অথবা বিস্কিটের গুঁড়া দরকার মত 
লবণ- স্বাদমতো তেল- ভাজার জন্যে   
প্রনালি 
নুডুলস সেদ্ধ করে পানি ঝরিয়ে নিন। ক্যানের মটর যদি সেদ্ধ না থাকে তাহলে সেদ্ধ করে নিন। -বড়ো একটি বাটিতে মটর চটকে নিন। এবার এর সাথে নুডুলস ও অন্যান্য উপকরণ মেশান।  -এইসময় নুডুলসের প্যাকেটে যে মসলা থাকে সেটাও দিয়ে দিতে পারেন। বাইন্ডিং-এর জন্যে সামান্য তরল দুধ দিতে পারেন।  -মাখানো হলে ৮-১০টি কাটলেট বানিয়ে ব্রেডক্রাম্বস-এ গড়িয়ে নিন। -মাঝারি আঁচে নন-স্টিক প্যানে তেল গরম করে মৃদু আঁচে কাটলেটগুলি শ্যালো ফ্রাই করে নিন। অলিভ অয়েল ব্যবহারে ফ্লেভার ভালো আসবে। দুইপাশ গোল্ডেন করে ভেজে নিন। -গরম গরম পরিবেশন করুন গ্রীন চাটনি অথবা টমাটো কেচাপ দিয়ে।

ভিনেগারের স্বাদে কষানো খাসির মাংস

ranna banna o beauty tips
খাসির মাংস
খাসির মাংস রাঁধতে গেলে গন্ধ থেকে যাওয়া বা সেদ্ধ না হওয়াটা অনেক রাঁধুনিরি সমস্যা। জেনে নিন নদী সিনার রেসিপি, এখন থেকে এই ঝামেলা থাকবে না মোটেও!  

উপকরণ :  খাসির মাংস ১ কেজি  টক দই ১/২ কাপ   পেঁয়াজ বাটা ও পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ।   আদা বাটা, রসুন বাটা ২ চা চামচ   জিরা বাটা পরিমাণমতো।  হলুদের গুঁড়া ও শুকনা মরিচ ১ চা চামচ করে।  এলাচি ৪ টি    দারুচিনি ২ টুকরা    সয়াবিন তেল ১/৪ কাপ   লবণ পরিমাণমতো। ভিনেগার ২ টেবিল চামচ।    

প্রণালি :  
-টকদই, পেঁয়াজ বাটা, আদা বাটা, রসুন বাটা, জিরা বাটা,ভিনেগার  দিয়ে মাংস মাখিয়ে রেখে দিন আধা ঘণ্টা। 
 -পাত্রে তেল নিয়ে গরম করে তাতে পেঁয়াজ কুচি, এলাচি দানা, দারুচিনি দানা ফাটিয়ে ছেড়ে দিন। -পেঁয়াজ বাদামি হয়ে এলে তাতে মাংস ছেড়ে দিন। ১৫-২০ মিনিট নাড়াচাড়া করুন।  
-তেল মাংসের ওপর উঠে এলে দুই কাপ পানি দিয়ে মিনিট দশেক জ্বাল দিন।  
-মাংস সেদ্ধ হয়ে গেলে নামানোর দুই মিনিট আগে কয়েকটি কাঁচা মরিচ মাঝখানে লম্বালম্বি কেটে ছেড়ে দিন।  
-নামিয়ে মাংসের ওপর কাঁচামরিচ  ও ধনেপাতা কুচি ছড়িয়ে দিয়ে পরিবেশন করুন।

তুরস্কের মজাদার সুজির বিস্কুট তৈরি করুন ঘরেই

ranna banna o beauty tips
তুরস্কের মজাদার সুজির বিস্কুট তৈরি করুন ঘরে
কুকি বা বিস্কুট ছাড়া চায়ের কথা চিন্তাই করা যায় না। চায়ের সাথে হোক বা হুটহুটা ক্ষুধা মেটানোর জন্য একটি বিস্কুটই যথেষ্ট। অনেকেই বিস্কুট বাসায় তৈরি করে থাকেন। বিস্কুট নানভাবে তৈরি করা যায়। তুরস্কের একটি জনপ্রিয় বিস্কুট হল সুজির তৈরি বিস্কুট। সাধারণ কিছু উপাদান দিয়ে তুরস্কের এই বিস্কুটটি আপনিও তৈরি করে ফেলতে পারেন ঘরে।
উপকরণ:

১০০ গ্রাম মাখন
১০০ মিলিগ্রাম তেল
২ কাপ ময়দা
২টি ডিম
৩ টেবিল চামচ চিনির গুঁড়ো
২ টেবিল চামচ নারকেল কুচি
২ টেবিল চামচ সুজি
১ চা চামচ বেকিং পাউডার
১ চা চামচ ভ্যানিলা এসেন্স
সিরাপ তৈরির জন্য:
২.৫ কাপ চিনি
২.৫ কাপ পানি
১/৪ লেবুর রস
১ টি ডিম ব্রাশ করার জন্য
বাদাম এবং পেস্তা সাজানোর জন্য
প্রণালী:


১। প্রথমে চিনির সিরা তৈরি করে নিন। এর জন্য চুলায় পানি এবং চিনি সিদ্ধ করতে দিন। বলক আসলে এতে লেবুর রস দিয়ে দিন। লেবুর রস চিনির ময়লা দূর করে দিবে।
২। তারপর মাখন এবং চিনি খুব ভাল করে মিশিয়ে নিন।
৩। মাখন এবং চিনি ভাল করে মিশে গেলে এতে তেল দিয়ে আবার বিট করুন।
৪। মাখন, চিনি এবং তেল বিট করার সাথে সাথে ডিম, ভ্যানিলা এসেন্স, নারকেল কুচি দিয়ে আবার ভাল করে মিশিয়ে নিন।
৫। তারপর এতে সুজি মিশিয়ে বিট করুন।
৬। এরপর বেকিং পাউডার এবং ময়দা আস্তে আস্তে মিশিয়ে বিট করে নিন।
৭। ডো তৈরি হয়ে গেলে পছন্দের মত বিস্কুটের আকৃতি করে নিন।
৮। এখন ডিমের কুসুমের সাথে এক টেবিল চামচ অলিভ  অয়েল মিশিয়ে নিন।
৯। এটি দিয়ে বিস্কুটের উপর ব্রাশ করে নিন।
১০। এখন আপনি চাইলে বিস্কুটের উপর কাঁটা চামচ দিয়ে দাগ টেনে নিন কিংবা একটি বাদাম বিস্কুটের উপর দিয়ে দিন।
১১। এবার ১৮০ ডিগ্রী সেলসিয়াস বা ৩৬০ ফারেনহাইটে ২০-২৫ মিনিট বেক করুন।
১২। বিস্কুটগুলো তৈরি হয়ে গেলে এর উপর চিনির সিরা দিয়ে দিন।
১৩। ব্যস তৈরি হয়ে গেল মজাদার সূজির বিস্কুট।

সাধারণ উপকরণে তৈরি করুন মজাদার নারকেলি পাকন পিঠা

ranna banna o beauty tips
মজাদার নারকেলি পাকন পিঠা
শীত মানেই পিঠা পুলির মৌসুম। খুব সহজে মজাদার পিঠার রেসিপি চাই? দেখে নিন নাদিয়া নাতাশার দারুণ এই রেসিপিটি আর তৈরি করুন মজাদার নারিকেলি পাকন পিঠা।
উপকরণ
সুজি ১ কাপ,
নারিকেল বাটা মিহি ২ কাপ,
চালেৱ গুঁড়ো ১/২ কাপ,
ময়দা ২ কাপ,
পানি ২ কাপ,
লবণ এক চিমটি,
সিরার জন্য লাগবে-
চিনি ৪ কাপ, পানি ২ কাপ, এলাচ ১ টুকরো, দারুচিনি ১ টুকরা, তেল ভাজাৱ জন্য।
প্রনালী
-চুলায় পানি দিয়ে সুজি ভালো করে ফুটিয়ে নিন।
-এবার নারিকেল বাটা দিয়ে দিন,ভালোভাবে ফুটে উঠলে চালের গুঁড়ো দিন,সবশেষে ময়দা দিয়ে খামির তৈরি করুন।
- চুলা থেকে নামিয়ে সামান্য তেল দিয়ে ময়ান দিন।
-সিরার জন্য পানি চিনি একসাথে মিশিয়ে চুলায় দিন। এলাচ দারুচিনি দিন,চিনি ভালভাবে গলে গেলে নামিয়ে নিন।
-এবার খামির থেকে ছোট ছোট পিঠা তৈরি করুন ডাইসের সাহায্যে।
-চুলায় তেল ভালভাবে গৱম হলে পিঠা মুচমুচে করে ভাজুন এবং সাথে সাথে সিরায় দিন।
-১ থেকে ২ মিনিট পরই উঠিয়ে ফেলুন এবং গরম গরম পরিবেশন করুন।

বৃহস্পতিবার, ৭ জানুয়ারী, ২০১৬

রেড টমেটো সুপ

ranna banna o beauty tips
রেড টমেটো সুপ
শীত মৌসুমে উষ্ণ আমেজ দেবে ক্রিম অফ রেড টমেটো সুপ।

উপকরণ:
পাকা লালটমেটো ৪,৫টি (টমেটো সুন্দর লাল রং হলে সুপের রংও লাল টকটকে হয়)। চিকেন স্টক পরিমাণ মতো (মুরগির হাড় গিলা পানি দিয়ে সিদ্ধ করে ছেঁকে নেওয়া পানি)। হেভি ক্রিম ৩ চা-চামচ (বাজারে পাওয়া যাবে)। গোলমরিচ-গুঁড়া সামান্য। লবণ স্বাদ মতো। আদাকুচি পরিমাণ মতো। সয়াসস ১ চা-চামচ।

পদ্ধতি:
টমেটো ধুয়ে টুকরা করে এক কাপ পানি দিয়ে ১০ মিনিট সিদ্ধ করে নামিয়ে ব্লেন্ড করে ছেঁকে নিন।

চিকেন স্টকের সঙ্গে টমেটোর মিশ্রণ দিয়ে এতে আদাকুচি, সয়াসস, লবণ, গোলমরিচের গুঁড়া এবং হেভি ক্রিম মিশিয়ে অল্প আঁচে জ্বাল দিন। সুপ ঘন হবে।

১০ থেকে ১৫ মিনিট অল্প আঁচে এভাবে জ্বাল দিন। পাত্রে ঢেলে পরিবেশন করুন। পরিবেশনের আগে উপর দিয়ে ক্রিম সুন্দর করে ছড়িয়ে দিন।

সুস্বাদু স্পাইসি ডিম ওমলেট

ranna banna o beauty tips
সুস্বাদু স্পাইসি ডিম ওমলেট
হুটহাট খাবার দাবারে ডিম ভাজির জুড়ি নেই। কিন্তু একটু আয়েসি ভঙ্গিতে খেতে চাইলে ব্যবস্থাও করতে হবে ভিন্নভাবে। তেমনি এক মজার খাবার ডিমের ওমলেট। তাও যদি হয় সুস্বাদু ইন্ডিয়ান স্পাইসি ডিম ওমলেট- তাহলে তো কথায় নেই। ঝটপট শিখে নেব স্পাইসি ডিম ওমলেটের সহজ রেসিপি।

যা যা লাগবে

ডিম ২টা, অলিভ অয়েল ২ টেবিলচামচ, পেঁয়াজ কুচি এক টেবিল চামচ, আদা কুচি সামান্য, মরিচ কুচি প্রয়োজনমতো, টমেটো কুচি ১ টেবিল চামচ, আলু কুচি ১ টেবিল চামচ, সবজি (শিম, বরবটি, ফুলকপি, গাজর) মিহি কুচি ২ টেবিল চামচ, লবণ পরিমাণমতো, পনির ১ চা চামচ।

যেভাবে করবেন

পনির ও অলিভ অয়েল বাদে সব উপকরণ একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। এবার ফ্রাই প্যানে অলিভ অয়েল গরম হলে মিশ্রণটি ঢেলে ভেজে নিতে হবে। এপিঠ ওপিঠ ভাজা হলে ওমলেটের ওপর পনির দিয়ে জ্বাল কমিয়ে দিন। পনির গলে গেলে নামিয়ে আনুন। ব্যাস হয়ে গেল, সুস্বাদু ডিম ওমলেট।

ত্বকের কালো দাগ দূর করুন মাত্র দুই সপ্তাহেই

ranna banna o beauty tips
ত্বকের কালো দাগ দূর করুন মাত্র দুই সপ্তাহেই
কে তো কালো দাগ, আবার তা যদি হয় মুখে তো সেটা কারোই কাম্য নয়। বিভিন্ন কারণে মুখে কালো দাগ পড়তে পারে। মুখের একটি ছোট দাগ আপনার সৌন্দর্য নষ্ট করে দিতে পারে। তাই মুখে দাগ পড়ার সাথে সাথে আমরা সেটা দূর করার চেষ্টা করে থাকি। আর এই দাগ দূর করার জন্য ব্যবহার করি নানা নামী দামী স্পট রিমুভার ক্রিম। আসলেই কি এই ক্রিমগুলো দাগ দূর করতে কার্যকরী? বেশিরভাগ ক্রিমই দাগ দূর করতে ব্যর্থ হয়ে থাকে, বরং ত্বকে এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া পড়ে থাকে। তাই ঘরেই তৈরি করে ফেলতে পারেন ত্বকের দাগ দূর করার ক্রিম এবং ফেসপ্যাক। এটি শুধু ত্বকের দাগ দূর করবে না, এর সাথে সাথে ত্বক ময়েশ্চারাইজও করবে।
১। লেবুর রস, ভিটামিন ই এবং শিয়া বাটার
আধা কাপ শিয়া বাটার, তিনটি ভিটামিন ই ক্যাপসুল এবং দুই টেবিল চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিন। প্রথমে শিয়া বাটার খুব ভালভাবে মিশিয়ে নেবেন, এবার এতে ভিটামিন ই ক্যাপসুল এবং লেবুর রস দিয়ে দিন। এবার এটি এয়ার টাইট গ্লাস কনটিইনারে সংরক্ষণ করুন। এটি সপ্তাহে দুইবার ব্যবহার করুন। শিয়া বাটারের পরিবর্তে আপনি কোকো বাটার ব্যবহার করতে পারেন।
২। লেবুর রস এবং ডিমের সাদা অংশ
৪ টেবিল চামচ লেবুর রস, ১টি ডিমের সাদা অংশ এবং ৪ চা চামচ মধু মিশিয়ে নিন। এই ক্রিমটি আলতোভাবে মুখে ম্যাসাজ করে লাগান। তারপর ১৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। ১৫ মিনিট পর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। ভাল ফল পেতে সপ্তাহে দুইবার ব্যবহার করুন।
৩। লেবুর রস, আলু, দুধ এবং মধু
আলুর পেস্ট, ১ টেবিল চামচ লেবুর রস, অল্প পরিমাণের দুধ এবং মধু মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এই ক্রিমটি মুখের কালো দাগের উপর লাগান। কয়েক মিনিট পর শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। আপনি চাইলে শুধু আলুর টুকরো কালো দাগের উপর লাগিয়ে রাখতে পারেন। ৩০ মিনিট আলুর টুকরোটি কালো দাগ থেকে সরিয়ে ফেলুন।
৪। আপেল সাইডার ভিনেগার,কোকো বাটার, এবং বেকিং সোডা
১ টেবিল চামচ আপেল সাইডার ভিনেগার, ১ টেবিল চামচ কোকো বাটার, ২ টেবিল চামচ বেকিং সোডা, ২ টেবিল চামচ কর্ড লিভার অয়েল এবং ২ টেবিল চামচ রসুনের তেল মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এই ক্রিমটি কাঁচের জারে সংরক্ষণ করুন। দিনে একবার ব্যবহার করুন এই প্যাকটি।
এছাড়া কালো দাগের উপর অ্যালোভেরা জেল লাগিয়ে রাখতে পারেন।  মধু এবং হলুদের গুঁড়ো মিশিয়ে লাগাতে পারেন ত্বকের কালো দাগের উপর। এটিও ত্বকের কালো দাগ দূর করে দিবে অল্প কিছুদিনের মধ্যে।

সুস্বাদু চিলি প্রন হয়ে যাক বাড়িতেই

ranna banna o beauty tips
সুস্বাদু চিলি প্রন
বছরের এই সময়টায় পিঁয়াজকলি খুব পাওয়া যায়। আর বিভিন্ন রকমের চাইনিজ ধাঁচের খাবার রান্নার মজা এই সময়েই পাওয়া যায়। আপনিও যদি চাইনিজ খাবারের ফ্যান হয়ে থাকেন, তবে রান্না করে ফেলতে পারেন চিলি প্রন। চিংড়ি আর পিঁয়াজকলির স্বাদে ঝাল ঝাল এই রান্নাটি হয়ে যাবে খুব কম সময়েই।  
উপকরণ:

-   ১০টি মাঝারি চিংড়ি খোসা ছাড়ানো ও পরিষ্কার করা
-   ২টি কাঁচামরিচ কুচি
-   ২ টেবিল চামচ সয়া সস
-   লবণ স্বাদমতো
-   ২ টেবিল চামচ ময়দা
-   ডিপ ফ্রাই করার জন্য তেল
-   ২/৩টা পিঁয়াজকলি
-   ৪/৫ কোয়া রসুন, মিহি কুচি করা
-   ১ ইঞ্চি পরিমাণ আদা, মিহি কুচি করা
-   ১টা সবুজ ক্যাপসিকাম, চৌকো করে কাটা
-   ২ টেবিল চামচ রেড চিলি সস
-   ১ কাপ চিকেন স্টক
-   ২ টেবিল চামচ কর্ন ফ্লাওয়ার
-   ১ টেবিল চামচ ভিনেগার
প্রণালী

১) একটা বড় বোলে চিংড়িগুলোকে নিয়ে নিন। এতে এক টেবিল চামচ সয়া সস, লবণ, ২ টেবিল চামচ ময়দা দিয়ে মেশান। ভালো করে মিশিয়ে পাঁচ মিনিট ম্যারিনেট হতে দিন।
২) নন-স্টিক প্যানে ডিপ ফ্রাই করার জন্য তেল গরম করতে দিন। এ সময়ে পিঁয়াজকলিগুলোকে টুকরো করে কেটে নিন। পিঁয়াজকলির নিচের অংশটা বড় করে কাটুন এবং সবুজ অংশটা কুচি করে নিন। তেল গরম হয়ে এলে ম্যরিনেট করা চিংড়িগুলোকে ডিপ ফ্রাই করে নিন কিন্তু পুরোপুরী ভাজবেন না, তার আগেই উঠিয়ে নিয়ে তেল ঝরিয়ে ফেলুন।
৩) আরেকটি কড়াইতে ২ টেবিল চামচ তেল গরম করে নিন। এতে রসুন এবং আদা দিয়ে বেশি আঁচে সাঁতলে নিন এক মিনিট। এতে পিঁয়াজকলির পিঁয়াজের টুকরোগুলো এবং ক্যাপসিকাম দিয়ে টস করে নিন। এতে কাঁচামরিচ, ১ টেবিল চামচ সয়াসস, রেড চিলি সস দিয়ে মিশিয়ে নিন ভালো করে। এরপর এতে চিংড়িগুলো দিয়ে লবণ ছিটিয়ে নিন। টস করে নিন যাতে সব মশলা চিংড়িতে লেগে যায়। দুই মিনিট রান্না হতে দিন।
৪) ২ টেবিল চামচ চিকেন স্টকের সাথে ২ টেবিল চামচ কর্ন ফ্লাওয়ার মিশিয়ে এটা রান্নায় মিশিয়ে নিন। নেড়ে নিন ভালো করে। এটা মিশে গেলে বাকি স্টকটাও রান্নায় দিয়ে দিন। তিন মিনিট রান্না হতে দিন।
৫) ১ টেবিল চামচ ভিনেগার এবং পিঁয়াজকলির সবুজ অংশ কুচি দিয়ে দিন। টস করে নিয়ে নামিয়ে নিন। গরম গরম পরিবেশন করুন।

বিকালের নাস্তায় হট রেড পাসতা

ranna banna o beauty tips
বিকালের নাস্তায় হট রেড পাসতা
পাস্তা খেতে খুব ভালোবাসেন? চলুন, জেনে নিই নাদিয়া নাতাশার হেঁসেল হতে একটি ঝটপট মজাদার পাস্তা রেসিপি।
উপকরণ:
পাস্তা ২ কাপ রসুন কুচি ১ চা চামচ আদা কুচি ১ চা চামচ আস্ত জিরা ১/২চা চামচ পেঁয়াজ কুচি ১/২ কাপ শুকনা মরিচ বাটা ১ চা চামচ মরিচ গুঁড়ো ১ চা চামচ গোল মরিচ গুঁড়ো ১/২চা চামচ গরম মশলা গুঁড়ো ১/২ চা চামচ টমেটো কুচি ১ কাপ মিহি গাজর কুচি ১/২ কাপ মিহি ফুলকপি কুচি ১/২ কাপ পেঁয়াজ কলি কুচি ১/২ কাপ টমেটো সস ১/২ কাপ ধনে পাতা (ইচ্ছা হলে) তেল ২/৩চা চামচ লবণ পরিমানমত  
প্রনালি: 
পাসতা গরম পানিতে সামান্য লবণ ও তেল দিয়ে সেদ্ধ করে পানি ঝরিয়ে রাখুন। -এবার প্যানে তেল দিয়ে আস্ত জিরা রসুন আদা দিয়ে সামান্য ভাজুন, পেঁয়াজ কুচি দিন। -বাদামি হলে টমেটো কুচি দিন। ফুল কপি,গাজর কুচি, মরিচ পেষ্ট,দিয়ে সামান্য পানি দিয়ে সেদ্ধ করুন। -সেদ্ধ হলে লবন,গোল মরিচ,মরিচ গুঁড়ো,গরম মশলা গুঁড়ো দিয়ে আরেকটু রান্না করুন। -এবার পাসতা দিয়ে ভাল করে নেড়ে নিন। -পেঁয়াজ কলি ও ধনে পাতা দিয়ে নামিয়ে গরম গরম হট রেড পাসতা পরিবেশন করুন শীতের দিনে বিকেলের নাস্তায়। 

টিফিনে মজাদার ক্রিপসি পটেটো বল

ranna banna o beauty tips
টিফিনে মজাদার ক্রিপসি পটেটো বল
বাচ্চাদের টিফিনে নিত্যনতুন খাবার তৈরি করতেই হয়। কিন্তু সবসময় কি নতুন নতুন খাবারের আইটেম তৈরি করা সম্ভব? আবার হুট করে মেহমান চলে এলেও পড়তে হয় মহা চিন্তায়। এর সহজ সমাধান আছে, তা হল পটেটো বল। আলু প্রায় সবার বাসাতে থাকে। এই আলু দিয়ে আমরা ফেঞ্চ ফ্রাই, আলুর চিপস, আলুর চপ কত খাবারই না তৈরি করে থাকি। এই আলু দিয়েই এবার তৈরি করে ফেলুন পটেটো বল। খুব সহজ এবং ঝটপট তৈরি করা যায় এই খাবারটি। ছোটদের তো দারুন প্রিয় আর বড়রাও পছন্দ করবে।
উপকরণ:
২টি বড় আকৃতির আলু
মাখন
লবণ (সামান্য পরিমাণে)
গোলমরিচ স্বাদমত
২টি ডিমের কুসুম
ময়দা
ব্রেড ক্রাম
তেল
প্রণালী:
১। প্রথমে আলু সিদ্ধ করে নিন।
২। আলুর খোসা ছাড়িয়ে আলু ম্যাশ করে নিন।
৩। ম্যাশ করা আলুর সাথে ডিমের কুসুম, মাখন, লবণ, গোল মরিচের গুঁড়ো ভাল করে মিশিয়ে নিন।
৪। এবার মিশ্রণটি ২ ঘণ্টা ম্যারিনেট করার জন্য রেখে দিন।
৫। তারপর আলুর মিশ্রণটি দিয়ে গোল বলের মত করে প্রথমে ময়দার উপর গড়িয়ে নিন। তারপর ডিমের মিশ্রণে ডুবিয়ে নিন।
৬। এখন আলুর বলটি ব্রেড ক্রামের উপর জড়িয়ে গরম তেলে দিয়ে দিন।
৭। বাদামী রং হয়ে গেলে নামিয়ে ফেলুন।
৮। ব্যস তৈরি হয়ে গেল মজাদার ক্রিপসি পটেটো বল।
৯। সস দিয়ে পরিবেশন করুন পটেটো বল।

বুধবার, ৬ জানুয়ারী, ২০১৬

সিল্কি চুলের জন্য কার্যকরী প্যাক

ranna banna o beauty tips
সিল্কি চুলের জন্য কার্যকরী প্যাক
স্বাস্থ্যোজ্জ্বল সুন্দর চুল চেহারার সৌন্দর্য বাড়িয়ে দেয় বহুগুনে। সে সৌন্দর্য থেকে নিজেকে বঞ্চিত করতে কেউ রাজি নয়। অথচ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজটি করতে ভুলে যাই। আর তা হল চুলের সঠিক পুষ্টির যোগান দেয়া হয় না। সুন্দর সিল্কি চুল পেতে হাতের কাছে থাকা উপাদান দিয়েই করা যায় উপযুক্ত পরিচর্যা। শিখে নিতে পারেন এমন কিছু কার্যকরী হেয়ার প্যাক যা আপনার চুলকে করবে সুন্দর সিল্কি।

টক দই

চুলের গোড়াসহ সম্পূর্ণ চুলে ভালোভাবে টকদই লাগিয়ে নিন। আধা ঘণ্টা পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলতে হবে। এটি আপনার চুলকে সিল্কি, ঝলমলে এবং স্বাস্থ্যজ্বল করে তুলবে।

মধু ও অলিভ অয়েল

আপনার শুষ্ক মলিন চুলকে স্বাস্থ্যজ্বল করে তুলতে মধু ও অলিভ অয়েল প্যাকের জুড়ি নেই। এই প্যাকটি চুলের আগা ফাটা দূর করে। এটি চুল বড় হতে সাহায্য করে এবং সিল্কি ও মসৃণ করে।

কলার প্যাক

একটি পাকা কলা ব্লেন্ড করে পেষ্ট করে নিন। এর সঙ্গে এক টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে নিতে হবে। চুলের গোঁড়া থেকে সম্পূর্ণ চুলে এই প্যাকটি লাগিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর কুসুম গরম পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। কলার প্যাক চুলের গোঁড়া মজবুত করার পাশপাশি চুলকে সিল্কি, মসৃণ করে।

ডিম এবং চা

এই শীতে হঠাৎ করে চুল রুক্ষ্ম ও শুষ্ক হয়ে গেছে। তাই চুলকে সিল্কি করে তুলতে ডিম চায়ের প্যাকটি অনেক বেশি কার্যকর। ডিমের সাদা অংশ এবং চায়ের লিকার দিয়ে একটি প্যাক তৈরি করে নিন। ডিমের সাদা অংশ চুলের গোঁড়া থেকে পুষ্টি জোগায়। অপরদিকে চায়ের লিকার প্রাকৃতিকভাবে আপনার চুলকে সিল্কি করে তুলবে।

ত্বকের বলিরেখা দূর করুন জাদুকরী এই ক্রিম ব্যবহারে

ranna banna o beauty tips
ত্বকের বলিরেখা দূর করুন জাদুকরী এই ক্রিম ব্যবহারে
প্রাকৃতিক নিয়মে বয়স বৃদ্ধি পায়, আর বয়সের সাথে সাথে ত্বকে দেখা দেয় বলিরেখা বা রিংকেল। আর এই বলি রেখা বা বয়সের ছাপ দূর করার জন্য কত কিছুই না আমরা করে থাকি। অ্যাণ্টি রিংকেল ক্রিম, অ্যান্টি রিংকেল ফেসিয়াল, নামী দামী কত ক্রিমই না আমরা ব্যবহার করে থাকি। এই ক্রিমগুলো কি আসলেই কার্যকরী? কাজ করলেও কতটুকুই বা কার্যকরী? আবার বাজারে ক্রিম ব্যবহারে থাকে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ভয়। বাজারে ক্রিম সাময়িকভাবে ত্বক টানটান করে বলিরেখা দূর করে থাকলেও, দীর্ঘমেয়াদি ফল এর থেকে লাভ করা সম্ভব নয়। অনেক তো ব্যবহার করলেন বাজারের অ্যান্টি রিংকেল ক্রিম। এবার না হয় ঘরে নিজেই তৈরি করে ফেলুন অ্যান্টি রিংকেল ক্রিম। খুব সাধারণ, প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে এই ক্রিম তৈরি করা হয় বিধায় এর কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। আর নিজেই তৈরি করে নিতে পারেন এই ক্রিমটি।
যা যা লাগবে:

১/৪ কাপ বিশুদ্ধ বাদাম তেল
২ টেবিল চামচ নারকেল তেল
২ টেবিল চামচ বিশুদ্ধ মোম
১/২ চা চামচ ভিটামিন ই অয়েল
১ টেবিল চামচ শিয়া বাটার
কয়েক ফোঁটা এসেন্সিয়াল অয়েল (ইচ্ছা)
যেভাবে তৈরি করবেন:

১। একটি পাত্রে সবগুলো উপাদান মিশিয়ে নিন।
২। এবার পাত্রটি ৪ থেকে ৫ ইঞ্চি পর্যন্ত পানি দিয়ে ভরে ফেলুন।
৩। এখন পাত্রটি চুলায় জ্বাল হতে দিন যতক্ষণ পর্যন্ত না সবগুলো উপাদান গলে না যায়, ততক্ষণ জ্বাল দিন।
৪। মাঝে মাঝে এটি নাড়ুন।
৫। সবগুলো উপাদান ভালমত মিশে গেলে এটি চুলা থেকে নামিয়ে ফেলুন।
৬। ক্রিমটি রুম তাপমাত্রায় ঠান্ডা হওয়ার জন্য রাখুন।
যেভাবে ব্যবহার করবেন:

দিনে দুইবার সকাল এবং রাতে ব্যবহার করুন। ব্যবহারের আগে মুখে ধুয়ে নিবেন। ক্রিমটি ঠান্ডা স্থানে সংরক্ষণ করুন।
বাদাম তেল, নারকেল তেল, শিয়া বাটার প্রতিটি উপাদান ত্বকের জন্য উপকারী। বাদাম তেল ত্বক নরম কোমল করে তোলে। নারকেল তেলের অ্যান্টি অক্সিডেন্ট উপাদান ত্বকে বয়সের ছাপ পরা রোধ করে। মোম এবং শিয়া বাটার উভয়ই অ্যান্টি ইনফ্লামেটরি উপাদান আছে। যা ত্বকের বলিরেখা পরা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে থাকে।

জেনে নিন ফরাসি সুন্দরীদের রূপের রহস্য!

ranna banna o beauty tips
জেনে নিন ফরাসি সুন্দরীদের রূপের রহস্য!
সৌন্দর্য ও ফ্যাশনের লীলাভূমি হচ্ছে ফ্রান্স। কিন্তু তাই বলে এটা ভেবে বসবেন না যে, ফ্রান্সের নারীরা তাদের ত্বক ও চুলের পরিচর্যায় আধুনিক কৌশল ব্যবহার করে। আপনি জেনে অবাক হবেন যে, ফরাসি নারীরা তাদের ত্বক ও চুলের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে প্রাকৃতিক পদ্ধতির উপর নির্ভর করে থাকেন বেশি! তাদের ত্বক ও চুলের সৌন্দর্যের মূল ভিত্তি হচ্ছে দাদীমাদের অর্থাৎ প্রাচীন রূপের রহস্য যা তারা আজও অনুসরণ করেন। ফরাসি সুন্দরীরা সাধারণত খুবই কম মেকআপ নিয়ে থাকেন এবং  ত্বককে সূর্যের আলো থেকে রক্ষা করার জন্য তারা সব সময় হ্যাট বা ছাতা ব্যবহার করে। আসুন আজ জেনে নেই ফরাসি রমণীদের সৌন্দর্য চর্চার আরো কিছু বিষয়।
১। প্রথাগত সৌন্দর্য পদ্ধতি অনুসরণ করে
ফ্রান্সের মানুষ ছোট বেলা থেকেই পরিবারের বয়োজ্যেষ্ঠদের থেকে সৌন্দর্যের বিষয়ে শিক্ষা গ্রহণ করেন যেমন- তারা ঘুমানোর আগে ভালোভাবে মুখ ধোন। তারা প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে তৈরি মাস্ক ব্যবহার করেন, যেমন- চোখের উপর শশার টুকরা ১৫ মিনিট দিয়ে রাখা, স্ট্রবেরি ও মধু মিশিয়ে মুখে ব্যবহার করা ইত্যাদি। তারা চুল ধোয়ার জন্য ঠান্ডা পানি ব্যবহার করে এবং চুলের উজ্জ্বলতার জন্য লেবু বা ভিনেগার ব্যবহার করে।
২। ঘুমানোর আগের সৌন্দর্য চর্চা
রাতের বেলায় মানুষ যখন ঘুমায় তখন ত্বক তার ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার কাজ করে এবং পুনর্জীবিত হয়। ফ্রান্সের রমণীরা ঘুমাতে যাওয়ার আগে ত্বক পরিষ্কার করার জন্য ক্লিঞ্জিং ও স্ক্রাবিং করে এবং ময়েশ্চারাইজিং এর জন্য অলিভ অয়েল, আমন্ড অয়েল ইত্যাদি ব্যবহার করেন।
৩। চুলে ড্রায়ার ব্যবহার করে না
ফ্রান্সের রমণীরা চুল ধোয়ার পর প্রাকৃতিক ভাবে শুকিয়ে নেন, তারা কখনোই ড্রায়ার দিয়ে চুল শুকান না। কারণ ড্রায়ার দিয়ে চুল শোকালে চুল ভঙ্গুর, শুষ্ক ও নিস্তেজ হয়ে যায়।
৪। প্রচুর পানি পান করে
সার্বিক স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্যের জন্য পানির অপরিহার্যতাকে ফ্রান্সের রমণীরা খুবই গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করে বলে সব সময় হাইড্রেটেড থাকেন। তারা পর্যাপ্ত পানি পান করার পাশাপাশি প্রায়ই মুখে পানির ছিটা দেন।
৫। ঠান্ডা পানি দিয়ে গোসল করে
ফ্রান্সের মেয়েরা সব সময় ঠান্ডা পানি দিয়ে গোসল করেন। এর ফলে তাদের রক্ত চলাচল বৃদ্ধি পায় এবং ত্বক উজ্জ্বল ও তরতাজা দেখায়। রক্ত প্রবাহ বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে মুখে গোলাপি আভা দেখা যায়।
৬। রোদ থেকে ত্বককে রক্ষা করে
সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে নিজেকে রক্ষার জন্য ফরাসি মেয়েরা সব সময় ছাতা ব্যবহার করেন এবং বড় হ্যাট ব্যবহার করে। এজন্য তাদের বলিরেখা পড়েনা। তারা বাইরে যাওয়ার আগে সানস্ক্রিনও ব্যবহার করেন।
৭। পাতলা দেহের জন্য তাদের কোন ঘোর কাজ করেনা
ফরাসি মেয়েরা সুস্থ ও সুখি জীবনে বিশ্বাস করে। তারা সাধারণ ও স্বাস্থ্যকর খাবার খান ও খাবারকে উপভোগ করেন। পরিবারের সবার সাথে খাবার গ্রহণ করে। তারা ভোজনের সময় অনেক বেশি স্ন্যাক্স খান না। তারা তাজা ফলমূল, আস্ত শস্যদানা, অলিভ অয়েল, মাছ, মাংস এবং দুগ্ধজাত খাবার খান বেশি। তাদের ওজন বৃদ্ধি পেলেও তারা জিমে যান না বরং সাধারণ এক্সারসাইজ যেমন- হাঁটা, দৌড়ানো ও এরোবিকস ইত্যাদি নিয়মিত করেন।
৮। বেশি মেকআপ করেন না
ফ্রান্সের মেয়েরা খুব বেশি মেকআপ করেন না কারণ তারা “ন্যাচারাল বিউটি” কথাটিতে বিশ্বাস করে। তাদের মেকআপ হয় “Done but not done look” এই বিখ্যাত উক্তিটির মতোই। আসলে স্বাস্থ্যবান উজ্জ্বল ত্বকের জন্য তেমন কোন মেকআপের প্রয়োজন হয় না। 
এছাড়াও ফরাসি সুন্দরীরা তাদের সৌন্দর্যের জন্য যে কাজ গুলো করেন- প্রতিদিন চুলে শ্যাম্পু ব্যবহার করেন না, সব সময় পারফিউম ব্যবহার করেন, হাত পরিষ্কার করা ছাড়া মুখে হাত লাগান না, শ্যাম্পু করার আগে চুল আঁচড়ান ইত্যাদি।

রূপচর্চায় অলিভ অয়েলের ৫ ব্যবহার

ranna banna o beauty tips
রূপচর্চায় অলিভ অয়েলের ৫ ব্যবহার
অলিভ অয়েল ভিটামিন, মিনারেল এবং প্রাকৃতিক ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ একটি তেল। এই তেল ত্বক এবং চুলের জন্য অনেক উপকারী। এমনকি সেনসিটিভ ত্বকেও এটি ব্যবহার করা যায় সহজে। এর কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। অলিভ অয়েলের অ্যান্টি অক্সিডেণ্ট উপাদান ত্বকের বলিরেখা, রিংকেল দূর করে ত্বক ময়েশ্চারাইজ করে থাকে। শুধু ত্বকের যত্নেই নয়। চুল নরম, শাইনি স্বাস্থ্যজ্বল করতে এর বিকল্প নেই।
১। গোসলে অলিভ অয়েল
বিশ্ববিখ্যাত অভিনেত্রী সোফিয়া লরেনকে মনে আছে? এই ইটালিয়ান সুন্দরী অলিভ অয়েল দিয়ে গোসল করতে পছন্দ করতেন। আপনার গোসলের পানিতে ৫ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে নিন। এবার এটি দিয়ে গোসল করুন। এক নিমিষে আপনার ত্বক নরম কোমল হয়ে উঠবে। এছাড়া গোসলের সময় অলিভ অয়েল  সারা শরীরে ম্যাসাজ করে নিতে পারেন। এই একটি কাজ নিয়মিত করার ফলে আপনার ত্বক হয়ে উঠবে অবিশ্বাস্য রকমের নরম এবং কোমল।
২। শুষ্ক ত্বকের জন্য
শুষ্ক ত্বকের অধিকারীদের ত্বকের রুক্ষতার কারণে ত্বকে নান সমস্যা দেখা দিয়ে থাকে। তাদের জন্য অলিভ অয়েল সবচেয়ে সহজ এবং কার্যকরী সমাধান। গোসলের পর আপনি কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল শরীরে ম্যাসাজ করুন। এরপর কয়েক মিনিট অপেক্ষা করুন শুকিয়ে যাওয়ার জন্য। এটি আপনার ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করে থাকবে। অলিভ অয়েল ব্যবহার করলে কোন লোশন ব্যবহার করার প্রয়োজন পড়বে না।  
৩। স্ট্রেচ মার্ক রিমুভার
অলিচ অয়েল ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখে এবং ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা ধরে রাখে। আপনার স্ট্রেচ মার্কের উপর অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করুন। এটি শুধু দাগ নয় পুরাতন স্ট্রেচ মার্কও হালকা করে থাকবে। তবে এটি নিয়মিত করতে হবে।
৪। সানস্ক্রিন
সমপরিমাণ অলিভ অয়েল এবং চায়ের লিকার পানি মিশিয়ে নিন। এটি আপনি মুখ এবং সারা শরীরে ম্যাসাজ করুন। এবার এক ঘণ্টা অপেক্ষা করুন। পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলবেন না। এটি সানস্ক্রিনের বিকল্প হিসেবে কাজ করবে।
৫। চুল শাইনি করতে
লেবুর রস, ডিমের কুসুম এবং দুই টেবিল চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এটি চুলে লাগিয়ে ১০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এটি চুল নরম এবং সাইনি করে তুলবে। খুশকি দূর করার জন্য সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করুন।
ত্বক থেকে মেকআপ দূর করতে অলিভ অয়েল বেশ কার্যকরী। এক টুকরো তুলোয় অলিভ অয়েল লাগিয়ে ত্বকে ঘষুন। এটি সুন্দরভাবে ত্বক থেকে মেকআপ তুলে ফেলবে।

লেবুর সুঘ্রাণে লেমন চিজ কেক

ranna banna o beauty tips
লেবুর সুঘ্রাণে লেমন চিজ কেক
চিজ কেক খাবারটি যে কোন পার্টিতে মানিয়ে যায় বেশ। নতুন স্বাদের কোন একটা চিজ কেক পরিবেশন করতে চান? তাহলে জেনে নিন নাজিয়া ফারহানার লেমন চিজ কেকের রেসিপি।   উপকরণ ১. ক্রিম চিজ -২৫০ গ্রাম ২. ক্রিম-১ টিন ৩.সাদা জেলোটিন -১ প্যাকেট ৪.ঘন দুধ -১ কাপ ৫.চিনি -১ কাপ ৬. লেমন জেলো -১ প্যাকেট  ৭. লেবুর রস-২ টেবিল চামচ  ৮. মাখন-১০০ গ্রাম ৯. মারি বিস্কুট গুঁড়ো  -১ প্যাকেট ১০. লেবু গোল করে কাটা -৮/১০ টা
প্রনালী   -প্রথমে বিস্কুট গুঁড়ো আর মাখন ভালো করে মাখিয়ে কেক মোল্ডের নীচে সমান ভাবে বিছিয়ে ১০মিনিট ফ্রীজে রাখতে হবে। -এই বার লেবু কাটা আর লেমন জেলো বাদে বাকী সব উপকরণ একসাথে বিট করে বিস্কুটের লেয়ারের উপর সমান করে ঢেলে দিয়ে ২০ মিনিট আবার ফ্রীজে রাখতে হব।  -এই বার লেমন জেলো বানিয়ে এরউপর ঢেলে তার উপর লেবু কাটা সাজিয়ে ফ্রীজে রেখে ঠান্ডা করে পরিবেশন করতে হবে। 

ভীষণ মজার খাবার ব্রেডেড চিকেন মিটবল

ranna banna o beauty tips
ব্রেডেড চিকেন মিটবল 
স্ন্যাক্স হিসেবে সাধারণত হালকা ভাজাভুজি খাওয়া হলেও এগুলো আসলে পেট ভরানোর জন্য খুব একটা ভালো হয় না। সেই হিসেবে বেশ তৃপ্তিদায়ক একটা খাবার হলো মিটবল। এটা খেতেও যেমন মুখরোচক তেমনি পেটও ভরায়। অনেকেই ভাবেন মিটবল তৈরি করাটা অনেক ঝামেলা। কিন্তু চিকেন মিটবলের এই রেসিপিতে সেসব ঝামেলায় যেতে হবেনা মোটেই। আধা ঘন্টার মাঝেই প্রস্তুত হয়ে যাবে দারুণ স্বাদের খাবারটি।
উপকরণ

-   ২ কাপ ফ্রেশ ব্রেড ক্রাম্ব
-   ৪৫০ গ্রাম হাড় ছাড়া মুরগীর পায়ের মাংস, ছোট করে কাটা
-   ডিপ ফ্রাই করার জন্য তেল
-   গোলমরিচ গুঁড়ো স্বাদমতো
-   সিকি চা চামচ জায়ফল গুঁড়ো
-   লবণ স্বাদমতো
-   ২ চা চামচ সয়া সস
-   ১ টেবিল চামচ সাদা ভিনেগার
-   ১টা মাঝারি পিঁয়াজ, মিহি কুচি করা
-   ১ টেবিল চামচ রসুন কুচি
-   ২ টেবিল চামচ ময়দা
-   ২টা ডিম
প্রণালী

১) বড় একটা প্যানে ডিপ ফ্রাই করার জন্য তেল গরম করতে দিন।
২) মুরগীর মাংস গোলমরিচ গুঁড়ো, জায়ফল গুঁড়ো, লবণ, সয়া সস এবং ভিনেগারের সাথে গ্রাইন্ড করে নিন। মুরগী কিমা হওয়া পর্যন্ত গ্রাইন্ড করুন। একটা বোলে ঢেলে নিন। এতে পিঁয়াজ এবং রসুন দিয়ে মিশিয়ে নিন। অর্ধেক পরিমাণ ব্রেড ক্রাম্ব মুরগীর কিমার সাথে মিশিয়ে নিন।
৩) একটা বোলে ময়দাটুকু ঢেলে নিন। আরেকটা বোলে ডিমগুলো ভেঙ্গে ভালো করে বিট করে নিন।
৪) হাতের তালু একটু পানি দিয়ে ভিজিয়ে নিন। মুরগীর কিমা আলাদা করে মিটবলের আকৃতিতে গড়ে নিন। এরপর বলগুলোকে ময়দায় গড়িয়ে নিন, ডিমে ডুবিয়ে আবার বাকি ব্রেডক্রাম্বে গড়িয়ে নিন। এরপর এগুলোকে ডিপ ফ্রাই করে নিন সোনালি করে। কিচেন পেপারে তেল ঝরিয়ে নিন।
তৈরি হয়ে গেলো খুব সহজ ব্রেডেড চিকেন মিটবল। পরিবেশন করুন কিছু সালাদ এবং সস দিয়ে।

তুরস্কের জনপ্রিয় ডিম রান্না সাকসুকা

ranna banna o beauty tips
তুরস্কের জনপ্রিয় ডিম রান্না সাকসুকা
মাছ মাংস খেতে বিরক্ত হয়ে গেলে অনেক সময় ডিম রান্না করা হয়। সাধারণত ডিম ভুনা, ডিম কোর্মা এই দুই ধরণের রান্না করা হয়ে থাকে। কিন্তু এই ডিম দিয়ে আরও একটি মজাদার রান্না করা সম্ভব। “সাকসুকা”-তুরস্কে জনপ্রিয় একটি রান্না এটি। মূলত ডিম এবং টমেটো দিয়ে তৈরি করা হয় এই খাবারটি। আসুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক তুরস্কের জনপ্রিয় ডিম রান্না সাকসুকা।
উপকরণ:
১ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল
১টি মাঝারি আকৃতির পেঁয়াজ কুচি
২ কোয়া রসুন কুচি
১টি মাঝারি আকৃতির ক্যাপসিকাম কুচি’
৪০০ গ্রাম টমেটো কুচি
২ টেবিল চামচ টমেটো পেস্ট
১ চা চামচ লাল মরিচ গুঁড়ো
১ চা চামচ জিরা গুঁড়ো
১ চা চামচ পাপরিকা বা লাল মরিচ গুঁড়ো
১ চা চামচ চিনি
লবণ
৬টি ডিম
ধনে পাতা কুচি (সাজানোর জন্য)  
প্রণালী:
১। একটি প্যানে মাঝারি আঁচে অলিভ অয়েল দিন। এরপর এতে পেঁয়াজ কুচি দিয়ে ৫ মিনিট ভাজুন।
২। পেঁয়াজ নরম হয়ে গেলে এতে রসুন কুচি দিয়ে নাড়ুন।
৩। এবার এতে ক্যাপসিকাম কুচি দিয়ে মাঝারি আঁচে ৫-৭ মিনিট রান্না করুন।
৪। ক্যাপসিকাম কুচি নরম  হয়ে গেলে এতে টমেটো কুচি, টমেটো পিউরি দিয়ে দিন।
৫। তারপর এতে রসুন কুচি, জিরা গুঁড়ো, লাল মরিচ গুঁড়ো, পাপরিকা, শুকনো মরিচ গুঁড়ো, চিনি, লবণ এবং গোল মরিচ গুঁড়ো দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়ুন।
৬। মাঝারি আঁচে ১০-১৫ মিনিট রান্না করুন।
৭। গ্রেভি ঘন হয়ে এলে টমেটো গ্রেভির উপর ডিম ভেঙ্গে দিন।
৮। মাঝখানে একটি আর চারপাশে চারটি  ডিম ভেঙ্গে দিন।
৯। প্যান ঢাকনা দিয়ে ঢেকে ১০-১৫ মিনিট রান্না করুন, যতক্ষণ না ডিম সিদ্ধ হয়ে থাকে ততক্ষণ।
১০। ডিম সিদ্ধ হয়ে গেলে ধনে পাতা কুচি দিয়ে পরিবেশন করুন তুরস্কের রান্না সাকসুকা।

মঙ্গলবার, ৫ জানুয়ারী, ২০১৬

মাখা ঝোলে আস্ত ইলিশ

ranna banna o beauty tips
মাখা ঝোলে আস্ত ইলিশ
বিশেষ রান্নায় উৎসবে আনবে সুস্বাদু আমেজ।
উপকরণ: ইলিশ মাছ ১টি (১২০০গ্রাম)। পেঁয়াজকুচি ১ কাপ। আদাবাটা ১ চা-চামচ। রসুনবাটা আধা চা-চামচ। টমেটো সস আধা কাপ। জিরাগুঁড়া আধা চা-চামচ। ধনেগুঁড়া আধা চা-চামচ। কাশ্মেরি মরিচগুঁড়া ১ চা-চামচ। কয়লা ৩, ৪ টুকরা। ঘি ১ চা-চামচ। লবণ পরিমাণ মতো। তেল ১ কাপ। ধনেপাতা-কুচি ১/৪ কাপ। আস্ত কাঁচামরিচ ৭,৮টি। শাহিজিরা আধা চা-চামচ। পানি পরিমাণ মতো। টক দই আধা কাপ। চিনি সামান্য। টমেটোকুচি ১ কাপ।
পদ্ধতি: হাঁড়িতে তেল গরম করে তাতে পেঁয়াজকুচি নরম করে ভেজে তাতে একে একে সব মসলা দিয়ে ভালো ভাবে কষিয়ে আস্ত মাছ দিয়ে দিন।
দুই মিনিট পর মাছটা উল্টিয়ে পানি আর লবণ দিন। ফুটে উঠলে টক দই ফেটিয়ে ঝোলে দিতে হবে। ঝোল কমে আসলে তাতে চিনি, টমেটোকুচি, সস দিয়ে ঢেকে দিন। ঝোল কমে তেল উঠে আসলে তাতে কাঁচামরিচ দিয়ে চুলা বন্ধ করে দিতে হবে।
একটা ছোট বাটিতে কয়লা গরম করে, বাটিসহ কয়লা মাছের হাঁড়িতে বসিয়ে তাতে ঘি দিয়ে ঢেকে দিন। ২০ মিনিট পর ঢাকনা খুলে বাটি সরিয়ে সাবধানে ডিশে ঢালতে হবে যেন মাছ ভেঙে না যায়।
উপরে ধনেপাতা-কুচি ছিটিয়ে পরিবেশন করতে হবে।

মুরগি–পেঁয়াজকলি ভাজি

ranna banna o beauty tips
মুরগি–পেঁয়াজকলি ভাজি
মুরগি–পেঁয়াজকলি ভাজি  শীতের সবজি দিয়ে উপাদেয় খাবার।  
উপকরণ: হাড় ছাড়া মুরগি ২০০ গ্রাম। পেঁয়াজকলি ২ আঁটি। পেঁয়াজকুচি ১ টেবিল-চামচ। কাঁচামরিচ-কুচি ২ চা-চামচ (স্বাদ মতো দেওয়া ভালো)। ধনেপাতা-কুচি ১ টেবিল-চামচ। আদাকুচি আধা চা-চামচ। লেবুর রস ১ চা-চামচ। লেবুর খোসা (লেমন জেস্ট) ১/৪ চা-চামচ। গরম মসলাগুঁড়া ১ চিমটি। আদা-রসুনবাটা ১/৪ চা-চামচ। মরিচগুঁড়া ১/৪ চা-চামচ। লবণ স্বাদ মতো। সরিষার তেল দেড় টেবিল-চামচ।  

পদ্ধতি: আদা–রসুনবাটা, মরিচগুঁড়া, গরম মসলাগুঁড়া আর লবণ দিয়ে মুরগির মাংস সিদ্ধ করে হাত দিয়ে ছিড়ে নিতে হবে।  পেঁয়াজকলি আধা ইঞ্চি করে কেটে নিন।  প্যানে তেল গরম করে প্রথমে আদাকুচি ভেজে তারপর পেঁয়াজকুচি দিয়ে সোনালি করে ভেজে নিতে হবে। এতে সিদ্ধ মুরগির মাংস দিয়ে হালকা ভেজে পেঁয়াজকলি দিয়ে চুলার আঁচ বাড়িয়ে ভাজতে হবে।  পানি শুকিয়ে গেলে কাঁচামরিচ-কুচি, ধনেপাতা-কুচি, লেমন জেস্ট, লেবুর রস, স্বাদ মতো লবণ মিশিয়ে অল্প সরিষার তেল ছড়িয়ে দিয়ে নামিয়ে পরিবেশন করুন।

খাবার টেবিলের সুন্দর সাজ

ranna banna o beauty tips
খাবার টেবিলের সুন্দর সাজ
প্রচণ্ড ক্ষুধার সময় যেনতেন টেবিলে বসে খাওয়াটা হতে পারে অনেক তৃপ্তির। কিন্তু বিশেষ কোনো খাবার আয়োজন বা অতিথি আপ্যায়ন হওয়া চাই বিশেষভাবে। সৌখিন খাবারের সঙ্গে পরিবেশনের জায়গাটাও হওয়া চাই দৃষ্টি নন্দন। পেটের সঙ্গে দৃষ্টি জুড়াতে খাবার টেবিলের চাই নান্দনিক সাজ। তাছাড়া রুচিশীল মানুষ তার খাবার টেবিলটি সাজাতে মোটেও কার্পণ্য করেন না। আপনার সৌন্দর্যবোধও সাহায্য করতে পারে খাবার টেবিলের সুন্দর সাজ এনে দিতে। আর তাই-

টেবিল ক্লথ

সুতি, প্লাস্টিক বা রাবারের তৈরি টেবিল ক্লথ বা টেবিলের ওপর বিছানো কাপড় পাওয়া যায়। টেবিল ক্লথগুলো পিস বা গজ হিসেবে বিক্রি হয়। বিভিন্ন রঙের ক্লথে ফুল, ফল ও বিভিন্ন প্রিন্টের নকশা করা থাকে। টেবিলের ধরন অনুযায়ী আপনি পছন্দের ক্লথ কিনতে পারবেন।

টেবিল ম্যাট

বাজারে বিভিন্ন ধরনের টেবিল ম্যাট আছে। বাঁশ, রাবার, ফাইবার, প্লাস্টিক, কাপড় ও পাটের ছোট, মাঝারি ও বড় ধরনের ম্যাট থেকে পছন্দেরটি বেছে নিতে পারেন। এগুলো গোল, চারকোনা, ত্রিকোনা ও ডিম্বাকার ডিজাইনের হয়। ম্যাটগুলো সাধারণত সেট হিসেবে বিক্রি করা হয়। বাঁশের তৈরি বিভিন্ন রঙের টেবিল ম্যাটের চাহিদা অনেক বেশি।

বাহারি ফুল-ফল

যারা খাবার টেবিলের ওপর কাঠের পরিবর্তে কাচ ব্যবহার করেন, তারা টেবিলের নিচে সেমি বক্সে নানা রকম কৃত্রিম ফুল ও ফল দিয়ে সাজাতে পারেন। সেক্ষেত্রে টেবিলের ওপর কিছু না রাখলেও চলবে। টেবিলের নিচের সাজটাই ওপরের শোভা বর্ধন করবে।

গ্লাস ঢাকনা

কাঠ, চাঁচ, কাচ ও ফাইবারের গ্লাস ঢাকনা পাওয়া যায়। গ্লাস ঢাকনাগুলো ছোট ও বড় আকারের হয়ে থাকে। ফুল, ফল, পাখি বিভিন্ন ডিজাইনের নকশা করা গ্লাস ঢাকনা কিনতে পারেন।

চামচ স্ট্যান্ড

চামচ সেটের সঙ্গেই স্ট্যান্ড পাওয়া যায়। এছাড়া স্টিলের স্ট্যান্ড, কাঠের স্ট্যান্ড চামচ রাখার জন্য কিনে নিতে পারেন। এগুলোর কোনোটায় শুধু চামচ রাখা যায়, আবার কোনোটায় ছুরিসহ চামচ রাখা যায়।

গ্লাস স্ট্যান্ড

গ্লাস স্ট্যান্ড স্টিল, প্লাস্টিক ও কাঠের হয়ে থাকে। গ্লাস স্ট্যান্ডগুলোতে ছয়টি ও ১২টি গ্লাস রাখা যায়। প্লাস্টিক ও কাঠের স্ট্যান্ডগুলো বিভিন্ন রঙের হয়।

প্লেট স্ট্যান্ড

প্লেট স্ট্যান্ডগুলো স্টিল, প্লাস্টিক, কাঠ ও ফাইবারের হয়। এগুলোর ছোট-বড় আকারের হতে পারে। কোনো স্ট্যান্ডে ছয়টি, কোনোটিতে ১২টি আবার কোনোটিতে ২৪টি প্লেটও রাখা যায়।

রানার

রানার দিয়ে টেবিলের বাড়তি সৌন্দর্য ফুটিয়ে তুলতে পারেন। কাপড়, পাট ও রাবারের রানার বিভিন্ন আকারের রয়েছে। লাল, নীল, হলুদ, সবুজ রঙের এবং বিভিন্ন নকশা করা রানারও রয়েছে।

ফুলদানি

টেবিলের মাঝখানে একটি ফুলদানি রাখতে পারেন। টেবিলের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে ফুলদানিতে রাখতে পারেন কিছু তাজা ফুল। মাটি, কাচ, ক্রিস্টাল ইত্যাদির ফুলদানিও রাখা যায়। তবে টেবিলের আকার অনুযায়ী ফুলদানি রাখতে হবে।

টিস্যু বক্স

প্রয়োজন মেটানোর পাশাপাশি টেবিলের সৌন্দর্যও বাড়ায় টিস্যু বক্স। টিস্যু বক্সে পাবেন বাঁশ, বেত, স্টিল ও কাপড়ের।

আপনিও সুন্দর থাকবেন সারাটিক্ষণ

ranna banna o beauty tips
ঘুরে ফিরে বারবার আয়নার সামনে যাওয়া। উঁকি দিয়ে নিজের চেহারাকে দেখা নিখুঁতভাবে। কেনই বা ইচ্ছা করবে না, এমন সুন্দর কোমল চেহারা হলে সবাই-ই এমন কাজ করে থাকে। অথচ ঋতু বদলের ধাক্কায় কখন জানি চুরি হয়ে যাচ্ছে আপনার সৌন্দর্য। শীতের শুষ্ক হাওয়াতে সবই শুকনো পাতার মতো মর্মর প্রায়। ব্যথিত মনে ক্ষোভ পুষে না রেখে করে নিন টুকিটাকি যত্ন-আত্মি। সামান্য চেষ্টায় দীর্ঘদিন ধরে রাখুন আপনার প্রস্ফুটিত সৌন্দর্য। আপনিও সুন্দর থাকুন সারাটিক্ষণ। তাই আসুন শিখে নেয়া যাক খুটিনাটি কিছু উপায়...

সানস্ক্রিন ছাড়া বাইরে নয়

শীত কিংবা গরমে, ত্বকের সঠিক যত্নে সব ঋতুতেই চাই সানস্ক্রিন। সতেজ আর তারুণ্যদীপ্ত ত্বক ধরে রাখতে সানস্ক্রিন অত্যান্ত জরুরি। সূর্যের অতিবেগুনী রশ্মি ত্বকের ক্যানসার এবং ত্বকে বয়সের ছাপ পড়ার প্রধান কারণ। তাই ত্বককে কোমল রাখতে নিয়মিত সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে হবে। বাইরে যাওয়ার অন্তত ১৫ মিনিট আগে ভালো করে সানস্ক্রিন লাগিয়ে নিন। মনে রাখবেন সুন্দর থাকার মোক্ষম অস্ত্র সানস্ক্রিন ছাড়া বাইরে যাওয়া নয়।

ত্বকের আদ্রতা রক্ষা

সময়টা যেহেতু শীতকাল। তাই রুক্ষ্ম আর শুষ্কতার ধকল আপনাকে সহ্য করতেই হবে। তাই বলে তো আর ত্বককে অরক্ষিত রাখা যায় না। ত্বকের আদ্রতা ধরে রাখতে প্রতিদিন শরীরে ময়েশ্চরাইজিং লোশন এবং মুখে ময়েশ্চার ক্রিম মাখুন। এতে আপনার শরীরের ত্বক ভালো থাকার পাশাপাশি বয়সের ছাপ পড়তে দেবে না। ত্বক টান টান থাকবে।

ত্বকের পরিচর্যা

প্রাকৃতিক উপায়ে ত্বকের সৌন্দর্য ধরে রাখতে সব সময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে হবে। মাঝে মাঝে ত্বকের উপযোগী বিভিন্ন মাস্ক ব্যবহার করতে পারেন। ত্বকে বাড়তি ময়লা জমতে দেয়া ঠিক নয়। ত্বকের র‌্যাশ, ছোপ ছোপ দাগ, কালোভাব দূর করতে নিয়মিত সামান্য মাত্রায় পরিচর্যা অব্যাহত রাখতে পারেন। 

টুকটাক ব্যায়াম

আপনার বয়সের সঙ্গে হয়তো ওজন ঠিকই আছে। যতই ফাস্টফুড খান না কেন তবু ওজন বাড়ে না। কোথাও কোনো বাড়তি মেদ চর্বি নেই। ঠিক এই অবস্থায় আপনি ভাবছেন কষ্ট করে ব্যায়াম করার কি দরকার? হ্যা আপনাকেই বলছি, আপনার শারীরিক অবস্থা এভাবে হয়তো দু’বছর বা পাঁচ বছর পর্যন্তও স্থায়ী হতে পারে। কিন্তু একটা সময় পর না চাইলেও আপনার ওজন বাড়তে থাকবে। দেহের আকারে হয়ে যেতে পারে অনাকাঙ্ক্ষিত পরিবর্তন। তাই নিজের সৌন্দর্য ধরে রাখতে সামান্য ব্যায়ামের অভ্যাস রাখা জরুরি। ব্যায়াম দেহে রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে দিয়ে ত্বকে অক্সিজেন প্রবাহ বাড়ায়।

সঠিক খাদ্যাভ্যাস

প্রতিদিন যথেষ্ট পরিমাণ ফল এবং সবজি খান। ভিটামিন ‘এ’, ‘সি’ এবং ‘ই’ খাওয়ার ওপর বেশি জোর দিন। এসব ভিটামিন ত্বকে অ্যান্টি-অক্সিজেন হিসেবে কাজ করে ত্বককে ভালো রাখে।

পর্যাপ্ত পানি পান

নিজের প্রয়োজন অনুযায়ী পানি পান করুন, যাতে পিপাসা না লাগে। এতে শরীর ভালো থাকার পাশাপাশি ত্বকও ভালো থাকবে। ত্বকের কোষ সজীব থাকে।

স্বাদে গন্ধে ভরা সবজি খিচুড়ি

ranna banna o beauty tips
স্বাদে গন্ধে ভরা সবজি খিচুড়ি
সময়টা এখন হরেক রকম তাজা সবজির। এসব সবজির মিশেলে সুস্বাদু খিচুড়ি হলে সকালের নাস্তাটা মন্দ হয় না। ছোট বড় সবার কাছে প্রিয় হতে পারে বিশেষ রেসিপিতে রান্না সবজি খিচুড়ি। স্বাদ আর গন্ধে মোহময় এমন খিচুড়ি রান্না হবে সহজে। এক নজরে দেখে নিতে পারেন তেমনি এক দারুণ রেসিপি।

যা যা লাগবে

বাসমতি চাল ২ কাপ, সবজি (গাজর, বরবটি, মটরশুঁটি, ফুলকপি) ছোট টুকরো সব মিলিয়ে ২ কাপ, আলু আধা কাপ, ভাজা মুগডাল ১ কাপ, আদা বাটা দেড় চা চামচ, রসুন বাটা ১ চা চামচ, হলুদ গুঁড়া দেড় চা চামচ, টক দই দুই টেবিল চামচ, জিরা গুঁড়া ১ চা চামচ, লবণ ১ চা চামচ, চিনি ১ চা চামচ, গরম মসলা গুঁড়া ১ চা চামচ, পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, এলাচ ২টি, দারুচিনি ২টি, তেজপাতা ২টি, গরম পানি ৬ কাপ, ঘি ২ টেবিল চামচ, তেল আধা কাপ।

যেভাবে করবেন

মুগডাল ২ ঘণ্টা ও চাল আধা ঘণ্টা ভিজিয়ে রেখে পানি ঝরিয়ে নিন। মটরশুঁটি ছাড়া সব সবজি একসঙ্গে সেদ্ধ করে নিন। কড়াইয়ে অর্ধেক তেল দিয়ে গরম হতে দিন। এবার তাতে গরম মসলা ও পেঁয়াজ দিয়ে ভেজে টক দই, চিনি ও আধা চা চামচ লবণ দিন। একটু পর মসলা কষিয়ে সবজি দিন। সবজি কষানো হলে আলাদা পাত্রে তুলে রাখুন। এবার ওই কড়াইয়ে চাল দিয়ে ভাজতে থাকুন। ভাজা হয়ে গেলে গরম পানি ও আধা চা চামচ লবণ দিয়ে ঢেকে দিন। চাল পানি সমান সমান হলে রান্না করা সবজি দিয়ে নেড়ে ঢেকে আঁচ কমিয়ে ১০ মিনিট রান্না করুন। এবার কাঁচামরিচ ও ঘি দিয়ে আরও ১৫ মিনিট দমে রেখে নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

মাতোয়ারা স্বাদের ব্রেড পুডিং

Ranna banna o beauty tips
মাতোয়ারা স্বাদের ব্রেড পুডিং
চলে আসলো নতুন বছর। বাসায় আগত অতিথিদের আপ্যায়নের জন্য রয়েছে কতো না ব্যবস্থা। ঝাল মিষ্টি নানা পদের খাবার আয়োজনের মাঝে মনকাড়া স্বাদের ব্রেড পুডিং হতে পারে আকর্ষণের অন্যতম বিষয়। অনেক সময় বিয়ে বা জন্মদিনের অনুষ্ঠানেও উপাদেয় ডেজার্ট হিসেবে এর ব্যবহার চলে। ছোটদের সঙ্গে বড়রাও থাকে ব্রেড পুডিং এর স্বাদে মাতোয়ারা। নতুন বছরের খাবার তালিকা যোগ করতে আপনার হাতেও হয়ে যাক ইয়াম্মি স্বাদের ব্রেড পুডিং। 

যা যা লাগবে

কন্ডেন্সড মিল্ক ২০০ গ্রাম, পাউরুটি ৬ পিস, দুধ ২ কাপ, বাটার ২৫ গ্রাম, ডিম ২ টি, কিসমিস ৫০ গ্রাম, জায়ফল গুঁড়া ১ চিমটি।

যেভাবে করবেন

প্রথমেই ওভেন ১৬০ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেডে প্রি হিট করতে দিন। এরপর পাউরুটিগুলোর চারপাশ থেকে শক্ত অংশ ফেলে দিতে হবে। এবার রুটির দুইপাশে বাটার লাগিয়ে কোণাকুণি করে কেটে নিন। এরপর একটি বেকিং মোল্ডে পাউরুটি স্লাইসগুলো সাজিয়ে নিন কয়েকটি লেয়ারে। প্রতিটি লেয়ারে কিশমিশ দিতে হবে। অপর একটি বাটিতে কন্ডেন্সড মিল্ক, ফেটানো ডিম, দুধ ও জায়ফল গুঁড়ো দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এরপর বেকিং মোল্ডে সাজানো পাউরুটির উপর মিশ্রণটি ঢেলে দিন। ৩০ থেকে ৪০ মিনিট কিংবা ব্রেডের ওপর গোল্ডেন ব্রাউন রঙ ধারণ করা পর্যন্ত বেক করে নিন। এরপর বের করে ঠাণ্ডা করে বা নিজের পছন্দে কেটে পরিবেশ করুন।

স্বাদে গন্ধে ভরা পোলাও জর্দা

ranna banna o beauty tips
স্বাদে গন্ধে ভরা পোলাও জর্দা
জর্দা মানেই অতি পরিচিত সুস্বাদু ডিজার্ড। অতিথি আপ্যায়নে এর জুড়ি মেলা দায়। স্বাদ আর গন্ধে ভরা পোলাও জর্দা ছোট বড় সবার পছন্দ। রান্নার কৌশল জানা না থাকায় সুস্বাদু এই খাবারটি যখন তখন খাওয়া জোটে না। আজ আমরা জেনে নেব কীভাবে খুব সহজে বাসায় রান্না করা যায় বিয়ে বাড়ির মজাদার পোলাও জর্দা।

যা যা লাগবে

পোলাও চাল ২ কাপ, গরম পানি ২ লিটার, দারুচিনি ২ টি, এলাচ ২ টি, তেজপাতা ২ টি, লবঙ্গ ৩ টি, জাফরান এক চিমটি, বাটার আধা কাপ, চিনি ২ স্বাদমতো, বাদাম কুচি ২ কাপ, ড্রাই ফ্রুটস দেড় কাপের একটু বেশি, দুধ ২ কাপ।

যেভাবে করবেন

পানি গরম হয়ে এলে পানিতে চাল, দারুচিনি, এলাচ, লবঙ্গ, তেজপাতা, খাবার রঙ বা দুধে ভিজানো জাফরান ছেড়ে দিতে হবে। এবার চাল প্রায় সেদ্ধ হয়ে এলে পানি ঝরিয়ে ফেলুন। প্যানে বাটার গরম হলে বাকি তেজপাতা, দারুচিনি, লবঙ্গ, এলাচ দিয়ে দিন। এক মিনিট ভেজে বাদাম কুচি দিয়ে হালকা ভাজতে হবে। চিনি আর দুধ দিয়ে দিন, চিনি গলে যাওয়া পর্যন্ত নাড়তে থাকুন। এবার তাতে ড্রাই ফ্রুটস আর পানি ঝরানো চাল দিয়ে দিন। মাঝারি আছে পানি শুকানো পর্যন্ত রান্না করুন, খুব তাড়াতাড়ি পানি শুকিয়ে আঠালো হয়ে যাবে। তারপর নামিয়ে পছন্দমতো সাজিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার পোলাও জর্দা।

ঘরেই তৈরি করে ফেলুন রেস্টুরেন্ট স্বাদের চিকেন অন্থন

ranna banna o beauty tips
রেস্টুরেন্ট স্বাদের চিকেন অন্থন
চাইনিজে স্যুপের সাথে একটি খাবার প্রায় সবাই অর্ডার দিয়ে থাকেন, তা হল অন্থন। মচমচে এই খাবারটি স্যুপ ছাড়াও খেতে দারুন লাগে। অন্থন মূলত চিকেনের হয়, কিন্তু এটি সবজি দিয়েও তৈরি করতে পারেন। বাসায় অনেকেই অন্থন তৈরির চেষ্টা করে থাকে, কিন্তু রেস্টুরেন্টের মত হয় না। আসুন আজ জেনে নিই রেস্টুরেণ্টের মত মচমচে চিকেন অন্থন তৈরির রেসিপিটি।
উপকরণ:

১ কাপ ময়দা
১/২ কাপ কর্ণ ফ্লাওয়ার
২ চা চামচ মাখন
লবণ
৩/৪ কাপ গরম পানি
১ কাপ মুরগির কিমা
১ চা চামচ তিলের তেল
১/২ কাপ বাঁধাকপি
২টি ডিমের কুসুম
১ চা চামচ সয়াসস
১ টেবিল চামচ হয়সিন সন (ইচ্ছা)
১ গুচ্ছ ধনে পাতা
১ টেবিল চামচ পেঁয়াজ পাতা কুচি
১ টেবিল চামচ গাজর
১ চা চামচ কাঁচামরিচ কুচি
১ চা চামচ আদাকুচি
১ চা চামচ রসুন কুচি
তেল
১/২ চা চামচ গোলমরিচ গুঁড়ো
প্রণালী:

১। প্রথমে ময়দা, কর্ণ ফ্লাওয়ার, মাখন, লবণ এবং গরম পানি দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে ডো তৈরি করে নিন।
২। এখন একটি পাত্রে মুরগির মাংস বাটা, তিলের তেল, লবণ, বাঁধাকপি কুচি, দুটি ডিমের কসুম, সয়া সস, হইসিন সস, ধনে পাতা কুচি, পেঁয়াজ পাতা কুচি, গোলমরিচ গুঁড়ো, গাজর কুচি, কাঁচামরিচ, আদা কুচি, রসুন কুচি দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিন।
৩। এখন মাংসের কিমার মাঝে অল্প একটু পানি দিয়ে মিশিয়ে নিন।
৪। এখন ময়দার ডো দিয়ে ছোট ছোট রুটির মত পাতলা অন্থন শিট তৈরি করে নিন।
৫। শিটের মাঝখানে মুরগির কিমা দিয়ে আঙ্গুলে পানি নিয়ে শিটের চারপাশে লাগিয়ে দিন।
৬। এবার শিট একপাশ থেকে ভাঁজ করে কিমার অংশটুকু ঢেকে মুড়িয়ে নিন।
৭। এরপর শিটের মাথা দুটোর মুখ মাঝখানে এনে লাগিয়ে দিন।
৮। তারপর গরম তেলে চিকেন অন্থন দিয়ে দিন।
৯। সোনালী রং হয়ে এলে নামিয়ে ফেলুন।

সোমবার, ৪ জানুয়ারী, ২০১৬

টমেটো দিয়ে মাছের দুই পদ

ranna banna o beauty tips
টমেটো দিয়ে মাছের দুই পদ
কাঁচা-পাকা টমেটোয় কইমাছ আর কাঁচাটমেটোয় শুটকি-মাছ ভুনা।

টমেটো দিয়ে কই মাছঃ
উপকরণ: কইমাছ ৯টি। বড় কাঁচাটমেটো ৪টি। মাঝারি পাকাটমেটো ২টি। মটরশুঁটি ১ কাপ। পেঁয়াজকুচি ১ কাপ। রসুনবাটা আধা টেবিল-চামচ। আদাবাটা ১/৪ টেবিল-চামচ। গুঁড়ামরিচ আধা টেবিল-চামচ। হলুদ আধা টেবিল-চামচ। ধনেগুঁড়া ১/৪ চা-চামচ। জিরাগুঁড়া আধা চা-চামচ। তেল আধা কাপ। কাঁচামরিচ ৪,৫টি। ধনেপাতা-কুচি ২ টেবিল-চামচ। লবণ স্বাদ মতো।
পদ্ধতি: কইমাছ ধুয়ে ২০ মিনিট লবণ, মরিচ, একটু হলুদ এবং তেলে দিয়ে মাখিয়ে রাখুন। ২০ মিনিট পর মাছগুলো ভেজে ফেলুন৷

কড়াইতে তেল দিয়ে পেঁয়াজ হালকা রং করে ভাজুন। পাকাটমেটো কুচি করে তেলে দিয়ে ভাজতে থাকুন। এরপর একে একে সব মসলা আর অল্প অল্প পানি দিয়ে দুই তিনবার কষাতে হবে।

এখন মাছ, কাঁচাটমেটো, মটরশুঁটি ও কাঁচামরিচ দিয়ে ঢেকে ২০ মিনিট রান্না করুন। পানি শুকিয়ে তেল উপরে উঠে এলে, ধনেপাতা ছিটিয়ে নামিয়ে ফেলুন।

কাঁচাটোমেটো শুটকি ঝাল ভুনা 
উপকরণ: শুটকি ৬টি বড় আকারের। কাঁচাটমেটো ৪টি। পেঁয়াজকুচি ২ কাপ। রসুনকুচি ১ টেবিল-চামচ। রসুনবাটা ১ টেবিল-চামচ। মরিচগুঁড়া ২ টেবিল-চামচ। হলুদগুঁড়া ১ টেবিল-চামচ। আলু ২টি বড় আকারের। কাঁচামরিচ ৩,৪টি। তেল পরিমাণ মতো। লবণ স্বাদ মতো।
পদ্ধতি: শুটকিগুলো ছোট ছোট টুকরা করে নিন এবং শুকনা কড়াইতে টেলে নিন৷ শুটকিগুলো যখন পোড়া পোড়া হয়ে যাবে, টালা বন্ধ করে দিন এবং হালকা গরম পানিতে পাঁচ থেকে ছয় মিনিট ভিজিয়ে রাখুন৷

ভেজানোর পর শুটকি নরম হয়ে যাবে তখন শুটকির ভেতরের কাঁটা খুলে ফেলে দিন এবং শুটকিগুলো খুব ভালো করে ধুয়ে রাখুন৷ আলুগুলো পাতলা লম্বা করে কেটে রাখুন৷

কড়াইতে তেল গরম করে শুটকি, পেঁয়াজ এবং রসুনকুচি দিয়ে বাদামি করে ভেজে সঙ্গে রসুনবাটা আর অল্প লবণ দিয়ে ভেজে নিন।

একটু পানি, মরিচ ও হলুদ দিয়ে মসলা কষিয়ে নিন। তারপর মসলার সঙ্গে আলু দিয়ে ঢেকে রান্না করুন দুই মিনিট।

এবার কাটা কাঁচাটোমেটো দিয়ে লবণ পরখ করুন। লাগলে লবণ দিতে পারেন স্বাদ মতো। তারপর ঢেকে দিন শুটকিভুনা৷

পাঁচ থেকে ছয় মিনিট পর আলু পুরোপুরি সিদ্ধ আর টমেটো আধা সিদ্ধ হলে শুটকি ভুনা করে নামিয়ে ফেলুন।

কিভাবে মেক আপ ছাড়াই অপরুপা হয়ে উঠবেন

ranna banna o beauty tips
কিভাবে মেক আপ ছাড়াই অপরুপা হয়ে উঠবেন
নারীরা সবসময় চায় পুরুষদের চোখে সে হয়ে উঠুক অনন্যা। আর নিজেকে সুন্দরী করার প্রমানে, প্রয়াসের শেষ নেই।  আজকাল বিউটি পার্লারের এতো রমরমা, যে দিনের শেষে বা সপ্তাহের শেষে একবার না একবার যেতেই হবে। নানারকম প্রসাধনীর মাধ্যমে নিজেকে সুন্দর করে তোলার এ এক সুবর্ণ সুযোগ। এখন শীত, নানান সামাজিক অনুষ্ঠান রয়েছে। আর সেই সব দিনগুলোতে নিজেকে অনন্য সাধারণ করে তোলার জন্য মেক আপকেই বেস্ট ফ্রেন্ড বানিয়ে নেওয়া যেতে পারে। আগেকার দিনের মা খালারা কত সুন্দরী ছিলেন। একরাশ ঘন কালো চুল প্রায় অনেকেরই ছিল। তাঁরা কি তখন এতো প্রসাধনী ব্যবহার করত? একদম না। খুব সাধারন থেকেও তাঁরা ছিল অনন্যা। তাঁদের জীবনেও প্রেম আসত, তাঁদের জীবনেও বন্ধুত্ব ছিল। তাঁদের মধ্যে কেউ কেউ অভিনয় জগতের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।  বর্তমানে প্রসাধনী দ্রব্যের বিরাট ব্যবসার কারনে মানুষও আরও বেশি করে প্রভাবিত হচ্ছে। ভিতরের লাবন্য ক্রমাগত হারিয়ে যাচ্ছে। অথচ পানি, পুষ্টিকর খাবার, ফলমূল, সবুজ সবজি খেলে ত্বক আপনা থেকেই উজ্জল হযে উঠবে। তাতেই নিজেকে সুন্দর দেখাবে। এবারে বলব মেক আপ ছাড়া নিজেকে কিভাবে সুন্দর দেখানো যাবে। 
রেগুলার কেয়ার: 
এটা সবাই জানে, দিনের বেলার সাজ সবসময় হালকা হবে। রাতের বেলা কড়া। কিন্তু খুব অল্প প্রসাধনী ব্যবহারেও নিজেকে সুন্দর দেখানো যায়। বাড়িতে থাকলে, সপ্তাহে অন্তত দু’দিন ঘরোয়া ফেসপ্যাক বানিয়ে মুখে মাখুন। ঘরোয়া ফেসপ্যাক বলতে দুধের সর ও মুসুর ডালের ফেসপ্যাক বা ময়দা,দুধ,গোলাপ পানির ফেসপ্যাক ব্যবহার করুন। বাইরে থেকে এলে ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। রাতে কোনও ভাল নাইট ক্রিম ম্যাসাজ করুন। গোসলের সময় সাবান কম ব্যবহার করুন। রোজ সাবান না দিয়ে একদিন অন্তর সাবান দিন। অলিভ অয়েল গায়ে মাখতে পারেন। শ্যাম্পু করলেও মাঝে মধ্যে মাথায় ডিম বা আমলকী বা হেনা বা টক দই লাগান। তেল ও খুব জরুরি সুন্দর মজবুত চুলের জন্য। হট অয়েল ম্যাসাজ করবেন মাঝেমধ্যে। 
দিনের সাজ: 
এইবার, দিনেরবেলা বাইরে বেরনোর সময় ছাতা আর সানগ্লাস অবশ্যই পড়বেন। রোদ না থাকলে পড়ার প্রয়োজন নেই। রোদের তেজ খুব থাকলে লম্বা হাতার পোশাক পরার চেষ্টা করুন। বাইরে বেরুনোর জন্য সাজ হবে, হালকা কাজল আর ঠোঁটে গ্লস বা বাম। চুল বাধতেও পারেন আবার খোলা চুলও রাখতে পারেন। খুব বেশি জুয়েলারি পরার দরকার নেই। কপালে একটা ছোট্ট টিপ পরতে পারেন। 
রাতের সাজ: 
রাতের বেলা যদি কোনও অনুষ্ঠান বাড়ি থাকে বা কোথাও ঘুরতে যাওয়া থাকে, তবে উদ্দেশ্য অনুযায়ী পোশাক নির্বাচন করবেন আপনি। এরপর বলব, যাদের লম্বা চুল তাঁরা নানান ফ্যাশনে হেয়ার স্টাইল করতে পারেন। ছোট চুল হলে ছেড়ে রাখতে পারেন বা একটা পনিটেল করে রাখতে পারেন। অনুষ্ঠান থাকলে পছন্দসই জুয়েলারি পরবেন। রাতে একটু ডিপ কালারের জামাকাপড় পরতে পারেন। সাজের ক্ষেত্রে বলব, চোখে কাজল আর আইলাইনার লাগান সরু বা মোটা করে, ঠোঁটে লিপস্টিক লাগান হালকা করে। আর মুখে অন্য কোনও প্রসাধনী নয়। দেখবেন এতেই আপনি মনকাড়া সুন্দরী হয়ে উঠবেন। পারফিউমের ব্যাপারে বলব হালকা মিষ্টি গন্ধের সুগন্ধি ব্যবহার করুন। টিপ পরতে চাইলে, একটু বড় টিপ পরুন। যারা একটু বেশি ঘামেন তাঁরা সবসময় হাতে ওয়েট টিস্যু রাখবেন। ঘামলে টিস্যু দিয়ে হালকা করে ঘামটা মুছে নেবেন। এভাবেই যত কম সাজবেন তত বেশি ন্যাচারাল লুক ফিরবে। ত্বকও ভাল থাকবে। মুখে ব্রণ কম হবে। 

ঝুলে যাওয়া ত্বক টানটান করুন প্রাকৃতিক উপায়ে

ranna banna o beauty tips
ঝুলে যাওয়া ত্বক টানটান করুন প্রাকৃতিক উপায়ে
ময় ও স্রোত কারো জন্য অপেক্ষা করে না। বয়সের লক্ষণের ক্ষেত্রেও এটা প্রযোজ্য। বয়স বাড়ার সাথে সাথে ত্বকের ইলাস্টিন ও কোলাজেনের গঠনে পরিবর্তন দেখা দেয় যার ফলে ত্বক স্থিতিস্থাপকতা হারায় এবং ত্বক নিজের ময়েশ্চারাইজিং উপাদান হারায়। তাই ত্বক ঝুলে পড়ে। এছাড়াও বয়স বৃদ্ধির জন্য চেহারার মাংসপেশি দুর্বল হয়ে পড়ে ফলে ত্বক ঝুলে যায়।

ত্বকের ইলাস্টিসিটি কমে যাওয়ার কারণ হল, সূর্যের আলোতে বেশীক্ষণ থাকা, অতিরিক্ত ধূমপান করা, নিয়মিত অ্যালকোহল পান করা, স্থূলতা, প্রেগনেন্সি, দ্রুত ওজন কমা, কম খাওয়া, ভুল স্কিনকেয়ার প্রোডাক্ট ব্যবহার করা, পানিশূন্যতা এবং ত্বকে প্রখর রাসায়নিক ব্যবহার করা ইত্যাদি।
ত্বক ঝুলে যাওয়ার সাথে সাথে বিশেষ করে চেহারায় বলিরেখা ও ফাইন লাইন দেখা দেয়। এছাড়াও ত্বক ম্লান এবং স্বচ্ছ দেখায় এবং ত্বক অনেক বেশি স্পর্শকাতর হয়ে পরে। ঝুলে পড়া ত্বকে টানটান করার জন্য ঘরোয়া কিছু উপায় আছে। আজ সেগুলোই জেনে নেই আসুন।

১। ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন ও হাইড্রেটেড থাকুন
প্রচুর পরিমাণে তরল খাবার আপনার শরীরকে আভ্যন্তরীণ ভাবে হাইড্রেটেড রাখবে এবং ভালো মানের ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করলে ত্বক বাহ্যিক ভাবে নমনীয় থাকবে। শিয়া বাটার, আমন্ড তেল, ও অলিভ অয়েল হচ্ছে সবচেয়ে ভালো প্রাকৃতিক উপাদান যা ত্বককে কোমল রাখে।
২। মুখের ব্যায়াম করুন
সবচেয়ে খারাপ জায়গা হচ্ছে মুখের ও ঘাড়ের ত্বক ঝুলে পড়া। সৌভাগ্যক্রমে মুখের কিছু ব্যায়াম আছে যা নিয়মিত করলে মুখের ত্বক টানটান হয়। বিশেষ করে চিবুকের ত্বক ঝুলে পড়তে শুরু করে তাড়াতাড়ি। চিবুকের ত্বক টানটান করার জন্য মুখ ভর্তি করে বাতাস নিন, ৩০ সেকেন্ড অপেক্ষা করুন, তারপর ছেড়ে দিন। ৩০ গুণতে যে সময় লাগে সেই সময় পর্যন্ত দিনে দুইবার করে করুন। এইরকম আরো মুখের ব্যায়াম আছে যেমন- চিবুক উঠিয়ে সিলিং এর দিকে তাকিয়ে থাকুন, ৩০ সেকেন্ড পর নামিয়ে নিন। এভাবে চেহার এক্সারসাইজ করলে আস্তে আস্তে ত্বকের ভাঁজ গুলো দূর হবে।
৩। হেলদি ডায়েট       
হেলদি ডায়েট ত্বক টানটান করতে সাহায্য করে। ত্বক টানটান করার সবচেয়ে সহজ উপায় হচ্ছে পুষ্টিকর খাবার খাওয়া। যদি আপনি প্রতিদিন ফল ও সবজি খান তাহলে আপনার ত্বক আর্দ্র ও সুস্থ থাকবে। উচ্চমাত্রার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ খাদ্য অ্যান্টিএজিং এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। ফ্রি রেডিকেল ড্যামেজ এর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। যখন আপনার খাদ্য তালিকায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকেনা তখনই ত্বকের ঝুলে পড়ার সমস্যাটি দেখা দেয়। আপনার খাদ্য তালিকায় ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার যেমন- গাজর, বিট ইত্যাদি রাখুন। তাহলে ত্বকের ইলাস্টিসিটি পুনরায় ফিরে পাবেন। কোলাজেন বৃদ্ধির জন্য সয়া প্রোডাক্ট খান।
৪। ফেসিয়াল মাস্ক
ত্বক টানটান করার জন্য অন্যতম উপায় হচ্ছে ফেসিয়াল মাস্ক ব্যবহার করা। বিভিন্ন প্রকার মাস্ক আছে যেমন- ডিমের সাদা অংশ, লেবু, অ্যালোভেরা, মধু ও শশা ইত্তাদি।
·         ডিমের সাদা অংশে অ্যাস্ট্রিজেন থাকে যা ঝুলে পড়া ত্বকের মেরামতের জন্য ভালো।
·         ১টি বা ২টি ডিমের সাদা অংশ আলাদা করে নিয়ে ফেটাতে থাকুন যতক্ষণ না ফোমের মত হয়।
·         এবার এটি মুখে ও ঘাড়ে ভালোভাবে লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
·         দৃঢ় ত্বকের জন্য সপ্তাহে ২ দিন এটি ব্যবহার করুন। 
৫। অয়েল ম্যাসাজ করুন
মুখে ও ঘাড়ে প্রাকৃতিক তেল যেমন- অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করলে ঝুলে পড়া ত্বক দৃঢ় হয়। অলিভ অয়েলে ভিটামিন এ ও ই থাকে যা অ্যান্টি এজিং হিসেবে কাজ করে।
·         অলিভ অয়েল সামান্য গরম করে মুখে লাগান
·         আঙ্গুল দিয়ে বৃত্তাকারে মুখে ম্যাসাজ করতে খাকুন ১০ মিনিট যাবত
·         প্রতিদিন ঘুমানোর আগে এটা করুন।
·         এছাড়াও নারিকেল তেল, জোজোবা বা আমন্ড তেল ও ব্যবহার করতে পারেন।
এছাড়াও বাহিরে যাওয়ার ২০ মিনিট আগে ভালো মানের সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন যার SPF 15 বা তার উপরে। ঘুম কম হলে ত্বকের উপর সরাসরি প্রভাব পড়ে যার ফলে বয়সের ছাপ দ্রুত পরে। তাই পর্যাপ্ত সময় ঘুমান প্রয়োজন। প্রচুর পানি পান করুন। ধূমপান বর্জন করুন। হঠাৎ করে ওজন না কমিয়ে এক্সারসাইজের মাধ্যমে ওজন কমান। 

চিকেন দিয়েই তৈরি করে ফেলুন অন্যরকম এক সুইস রোল

ranna banna o beauty tips
সুইস রোল
ছোটবেলা থেকেই সুইস রোলের সাথে পরিচিত সবাই। সচরাচর সুইস রোল বলতে আমরা বুঝি ক্রিম মাখানো কেকের রোল। কিন্তু ঝাল ঝাল সুইস রোল তৈরি করে ফেলতে পারলে কেমন হয়? হ্যাঁ, বাড়িতে চিকেন আর পাউরুটি থাকলেই আপনিও তৈরি করে ফেলতে পারবেন এই চিকেন সুইস রোল। তৈরি করে ফেলতে পারবেন অনেক কম সময়ে, কম ঝামেলায়। যে কোন পার্টিতে ফিঙ্গার ফুড হিসেবে ছোট্ট ছোট্ট এই সুইস রোল হয়ে উঠবে অতিথিদের প্রিয়।
উপকরণ

-   ১টা হাড় ছাড়া চিকেন ব্রেস্ট
-   ৬টা পাউরুটির স্লাইস
-   ১ চা চামচ আদা-রসুন বাটা
-   ১ চা চামচ ধনেপাতা কুচি
-   ১ চা চামচ মরিচ গুঁড়ো
-   আধা চা চামচ গরম মশলা গুঁড়ো
-   ১ চা চামচ ধনে গুঁড়ো
-   আধা চা চামচ জিরা গুঁড়ো
-   লবণ স্বাদমতো
-   তেল ডিপ ফ্রাই করার জন্য
প্রণালী

১) খুব পাতলা করে কেটে নিন মুরগীর মাংস। এরপর এগুলোকে আরও ছোট করে কেটে একটা বোলে রেখে দিন। এতে মিশিয়ে নিন লবণ, আদা-রসুন বাটা, ধনেপাতা কুচি, মরিচ গুঁড়ো, গরম মশলা, ধনে এবং জিরা গুঁড়ো। ভালো করে মাখিয়ে মেরিনেট হতে রেখে দিন ১০-১৫ মিনিট।
২) পাউরুটির পাশের বাদামি অংশ কেটে বাদ দিয়ে দিন। পাউরুটি অর্ধেক করে কেটে রুটি বেলার বেলন দিয়ে চ্যাপ্টা করে নিন। এই রুটির টুকরোর মাঝে এক টুকরো চিকেন রাখুন। রোল করে টুথপিক দিয়ে আটকে নিন।
৩) কড়াইতে তেল গরম করে নিন। ডুবোতেলে ভেজে সোনালি করে তুলুন রোলগুলোকে। কিচেন পেপারে তেল ঝরিয়ে নিন।

ঘরেই তৈরি করে ফেলুন মজাদার পিজ্জা পরোটা

ranna banna o beauty tips
ঘরেই তৈরি করে ফেলুন মজাদার পিজ্জা পরোটা
সকালের নাস্তায় অনেকের পরোটা ছাড়া চলে না। পরোটা অনেকরমকভাবে তৈরি করা যায়। আলু পরোটা, ফুলকপির পরোটা, ডালের পরোটা কত রকমের পরোটা আমরা তৈরি করি। কিন্তু পিজ্জা পরোটা অন্য পরোটা থেকে কিছুটা ভিন্ন। এটি সকালের নাস্তায় খেতে পারেন। আবার চাইলে বিকেলের নাস্তায়ও এটি পরিবেশন করা যায়।
উপকরণ:

২ কাপ আটা
১.১/৪ কাপ চিজ
১/২ কাপ ক্যাপসিকাম কুচি
১/২ কাপ পেঁয়াজ কুচি
১/৪ কাপ বেবি কর্ণ
৮-১০ টি অলিভ কুচি
লাল শুকনো মরিচ গুঁড়ো
পিজ্জা সস
পেস্ত সস
তেল
লবণ
পানি
প্রণালী:

১। প্রথমে আটা, লবণ এবং পানি মিশিয়ে ডো তৈরি করে নিন।
২। ডোটিতে অল্প তেল দিয়ে মাখিয়ে ঢাকনা দিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট রেখে দিন।
৩। এখন আরেকটি প্যানে মোজারেলা চিজ, ক্যাপসিকাম কুচি, পেঁয়াজ কুচি, বেবি কর্ণ ( যা মাইক্রোওয়েবে ২০ সেকেন্ড গরম করা), অলিভ কুচি, লবণ, ইটালিয়ান সিজলিন, দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিন।
৪। এখন ডো থেকে লেচী কেটে বড় একটা রুটি তৈরি করুন।
৫। এখন রুটির চারপাশে পিজ্জা সস ভাল করে লাগিয়ে নিন।
৬। তারপর চিজের পুরটি অর্ধেক পরোটার একপাশে ছড়িয়ে দিন।
৭। এবার পরোটা অপর পাশ থেকে ভাঁজ করে পুরটা ঢেকে দিন।
৮। এখন কাটা চামচের বিপরীত পাশ দিয়ে পরোটার মুখটি চাপ দিয়ে দিন।
৯। এবার আরেকটি পরোটায় পস্তো সস এবং চিজের পুর দিয়ে দিন।
১০। তারপর প্যানে অল্প তেল দিয়ে ভাজুন।
১১। বাদামী রং  হয়ে গেলে পরিবেশন করুন মজাদার পিজ্জা পরোটা।

রবিবার, ৩ জানুয়ারী, ২০১৬

রান্নাঘর ঝকঝকে রাখবে এই ৩ টি লিকুইড ক্লিনার

ranna banna o beauty tips
৩ টি লিকুইড ক্লিনার
রান্নাঘর হলো এমন একটা জায়গা, প্রতিদিন পরিষ্কার না করলে নিমিষেই ভীষণ নোংরা হয়ে যায়। কিন্তু নানান রকমের কেমিক্যাল ক্লিনার ব্যবহার করলে তার কটু গন্ধ রয়ে যায় রান্নাঘরে, আর এগুলো স্বাস্থ্যের জন্যও খুব একটা ভালো নয়। এর বদলে আপনি নিজেই তৈরি করে নিতে পারেন কিছু প্রাকৃতিক লিকুইড ক্লিনার। একদম ঘরোয়া কিছু উপাদান তৈরি এই ক্লিনারগুলো আপনার রান্নাঘর যেমন রাখবে পরিষ্কার তেমনি স্বাস্থ্যেরও কোন ক্ষতি করবে না মোটেই। দেখে নিন রান্নাঘর ওপর থেকে নিচ পর্যন্ত পরিষ্কারের এসব ক্লিনার তৈরির উপায়।
খুব সাধারণ কিছু উপাদান দরকার হবে এই ক্লিনারগুলো তৈরি করতে। এগুলো হলো:
১) ভিনেগার: এটা তেল কাটতে সাহায্য করে, দাগ তুলে ফেলে এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান হিসেবে কাজ করে।
২) বেকিং সোডা: পরিষ্কার করার পাশাপাশি এটা দুর্গন্ধ দূর করে থাকে।
৩) ক্যাসটাইল সোপ বা গ্লিসারিন সোপ:  এটা প্রাকৃতিক সাবান হিসেবে কাজ করে।
৪) লেবু বা কমলা: এগুলোর খোসায় লিমোনিন নামের এক ধরণের প্রাকৃতিক উপাদান থাকে যা তেল কাটে এবং খুব সুন্দর সুগন্ধ ছড়ায়।
লেবুর সুগন্ধে ভিনেগার

এর জন্য আপনার লাগবে ঢাকনা সহ একটা কাঁচের জার, ভিনেগার এবং পাকা লেবু। লেবু ধুয়ে শুকিয়ে খোসা ছাড়িয়ে নিন। খোসাগুলোকে জারের ভেতর রেখে বাকিটা ভিনেগার দিয়ে ভরে দিন। এবার ঢাকনা লাগিয়ে একটা অন্ধকার, শুকনো জায়গায় রেখে দিন দুই সপ্তাহ। বেশিদিন রাখলে এর কার্যকারিতাও বাড়বে। এরপর বের করে ভিনেগারটা ছেঁকে নিন। এই ভিনেগার আপনি এমনিই ব্যবহার করতে পারেন টেবিল, সিঙ্ক এগুলো মোছার জন্য অথবা তৈরি করতে পারেন এই ক্লিনারগুলো-
তেল কাটানোর ক্লিনার

-   ২/৩ ভাগ পানি
-   ১/৩ ভাগ ভিনেগার
-   ৩ চা চামচ বেকিং সোডা
-   ৪ চা চামচ ক্যাসটাইল সোপ
-   স্প্রে বোতল
পানি ও এসেনশিয়াল অয়েল ছাড়া উপকরণগুলো একসাথে ঝাঁকিয়ে মিশিয়ে নিন এবং স্প্রে বোতলে ভরে নিন, কয়েক মিনিট পর পানিটুকু দিয়ে দিন। আরও কয়েক মিনিট পর ইচ্ছে হলে দিতে পারেন এসেনশিয়াল অয়েল। এটা ব্যবহার করা যাবে মাইক্রোওেভের ভেতরের তেলতেলেভাব দূর করতে অথবা চুলের আশেপাশের তেলতেলে ময়লা দূর করতে।
ফ্লোর ক্লিনার

-   ১ কাপ পানি
-   ১ কাপ ভিনেগার
-   ৪ টেবিল চামচ ক্যাসটাইল সোপ
-   ১০ ফোঁটা এসেনশিয়াল অয়েল
এটা রান্নাঘরের টাইলের মেঝে থেকে ময়লা ও তেল চিটচিটেভাব দূর করবে।
অল পারপাস ক্লিনার

- এক কাপ পানি
- এক কাপ ভিনেগার
- এসেনশিয়াল অয়েল
- স্প্রে বোতল
যে কোনও ময়লা দূর করতে এই স্প্রে কাজে আসবে চটজলদি।
এসব ক্লিনার শুধু যে নিরাপদ এবং কার্যকরী তাই নয়, বরং এগুলো টাকা বাঁচাতেও কাজে আসে।

নতুন বছরে তৈরি করে ফেলুন মজাদার মশলা ডাক রোস্ট

ranna banna o beauty tips
মজাদার মশলা ডাক রোস্ট
শীত চলে এসেছে আর হাঁস খাওয়া হবে না, তা কি করে হয়? হাঁস খাওয়ার সবচেয়ে পারফেক্ট সময় হল শীতকাল। হাঁস রান্নাটি অন্য দশটি রান্না থেকে কিছুটা ভিন্ন। একটু মশালাদার, ঝাল না হলে খেতে ভাল লাগে না। সাধারণত আমরা হাঁস রান্না করতে নারকেল এবং নারকেলের দুধ ব্যবহার করে থাকি। অনেকের নারকেল খাওয়া নিষেধ থাকে, তারা নারকেল হাঁস খেতে পারেন না। নারকেল ব্যবহার না করেও ডাক রোস্ট তৈরি করা সম্ভব। আসুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক মশলা ডাক রোস্ট রেসিপি।
উপকরণ:
৫০০ গ্রাম হাঁসের মাংস
১০-১৫ কোয়া রসুনের কোয়া
২ ইঞ্চি আদা কুচি  
৮-১০ টি লাল মরিচ
২টি বড় আকৃতির পেঁয়াজ কুচি
১/২ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো
লবণ স্বাদমত
১/২ চা চামচ গোলমরিচ গুঁড়ো
১ চা চামচ গরম মশলা গুঁড়ো
১ চাচামচ চিনি
১ টেবিল চামচ কিশমিশ
তেল
২টি মাঝারি আকৃতির আলু
পানি
প্রণালী:
১। প্রথমে আদা কুচি, রসুন কুচি, লবণ, হলুদ গুঁড়ো, গরম মশলা গুঁড়ো, গোল মরিচ গুঁড়ো, লাল মরিচ, পেঁয়াজ কুচি দিয়ে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে পেস্ট তৈরি করে নিন।
২। এখন একটি প্যানে হাঁসের মাংস,তেল, মশলার পেস্ট দিয়ে মিশিয়ে নিন।
৩। এবার এটি ৩০ মিনিটের জন্য ম্যারিনেট করতে দিন।
৪। এখন আরেকটি প্যান চুলায় গরম করতে দিন। এতে কিউব করে কাটা আলুর টুকরোগুলো দিয়ে দিন।
৫। হালকা করে ভাজুন।
৬। আরেকটি প্যানে ম্যারিনেট করা মাংস চুলায় দিয়ে ৫ মিনিট জ্বাল দিন।
৭। এবার এতে চিনি, কিশমিশ দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়ুন।
৮। তারপর পানি দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়ুন।
৯। ঢাকনা দিয়ে অল্প আঁচে ২০ মিনিট রান্না করুন।
১০।  এরপর ভাজা আলু, ধনে পাতা কুচি দিয়ে নাড়ুন।
১১। ঢাকনা দিয়ে ১০ মিনিট মাঝারি আঁচে রান্না করুন।
১২। ব্যস তৈরি হয়ে গেল মশালাদার ডাক রোস্ট।
১৩। পরোটা, পোলাও, সাদা ভাত সবকিছুর সাথে খেতে পারেন এই মজাদার খাবারটি।

বাদামের স্বাদে দারুণ মজার চিকেন স্টার ফ্রাই

ranna banna o beauty tips
চিকেন স্টার ফ্রাই
বাদাম খেতে অনেকেই পছন্দ করেন। কিন্তু রান্নায় বাদাম ব্যবহার করার কাজটা সবাই পারেন না। তারা খুব চটজলদি তৈরি করে ফেলতে পারেন বাদামের স্বাদে চিকেন ফ্রাই। এই ফ্রাই স্ন্যাক্স হিসেবে যেমন, তেমনি ফ্রাইড রাইসের সাথেও খেতে দারুণ লাগবে। উৎসবের এই সময়টায় অন্যরকম এই স্বাদে অবাক করে দিন আপনার পরিবারকে।




উপকরণ

-   ৪০০ গ্রাম হাড়ছাড়া চিকেন ব্রেস্ট, চিকন করে কাটা
-   ২ টেবিল চামচ + ১ চা চামচ কর্ন ফ্লাওয়ার
-   ২ টেবিল চামচ ময়দা
-   ২ ইঞ্চি সেলেরি স্টিক, কুচি করা
-   ভাজার জন্য তেল
-   ৩টা পিঁয়াজকলির সাথে থাকা কচি পিঁয়াজ, কুচি করা
-   অর্ধেকটা হলুদ ক্যাপসিকাম, মাঝারি কিউব করে কাটা
-   অর্ধেকটা লাল ক্যাপসিকাম, মাঝারি কিউব করে কাটা
-   অর্ধেকটা সবুজ ক্যাপসিকাম, মাঝারি কিউব করে কাটা
-   আধা কাপ বিভিন্ন ধরণের বাদামের মিশ্রণ, মিহি কুচি করা
-   লবণ স্বাদমতো
-   সিকি কাপ টমেটো কেচাপ
-   সিকি কাপ পিঁয়াজকলি পাতা কুচি
-   ৫/৬টা রসুনের কোয়া কুচি
-   ১ চা চামচ সয়া সস
-   আধা চা চামচ গোলমরিচ গুঁড়ো
-   ২ টেবিল চামচ মরিচবাটা
-   ২টা ডিম
প্রণালী

১) একটা বড় বোলে মুরগীর টুকরো, লবণ, গোলমরিচ, রসুন, ১ টেবিল চামচ মরিচ বাটা, একটা ডিমের কুসুম নিয়ে ভালো করে মাখিয়ে নিন। এটাকে ১০-১৫ মিনিট ম্যারিনেট হতে দিন।
২) আরেকটা বোলে একটা ডিমের সাদা অংশ, আরেকটা ডিমের পুরোটা, লবণ, গোলমরিচ গুঁড়ো দিয়ে এটাকে ভালো করে বিট করে নিন।
৩) বাদাম, ২ টেবিল চামচ কর্ন ফ্লাওয়ার, ২ টেবিল চামচ ময়দা, লবণ এবং গোলমরিচ গুঁড়ো মিশিয়ে নিন।
৪) চিকেনের টুকরোগুলোকে প্রথমে ডিমের মিশ্রণে ডুবিয়ে বাদামের মিশ্রণে গড়িয়ে নিন।
৫) ডিপ ফ্রাই করার মতো যথেষ্ট তেল গরম করে নিন কড়াইতে। চিকেনগুলোকে সোনালি করে ভেজে তুলুন। ঠিকমতো সেদ্ধ হয়েছে কিনা খেয়াল রাখবেন। কিচেন টাওয়েলে রাখুন যাতে তেল শুষে নেয়। 
৬) এবার সস তৈরি করুন। একটা কড়াইতে অল্প তেল গরম করে এতে রসুন এবং সেলেরি দিয়ে সাঁতলে নিন ২০ সেকেন্ড। এতে কচি পিঁয়াজ কুচি, মরিচ বাটা দিয়ে এক মিনিট ভুনে নিন। এরপর টমেটো কেচাপ দিয়ে মিশিয়ে নিন ভালো করে।
৭) ক্যাপসিকামগুলো দিয়ে টস করে নিন। ওপরে একটু পানি ছিটিয়ে সয়াসস, লবণ ও গোলমরিচ গুঁড়ো দিন। ভালো করে মিশিয়ে নিন। এক চা চামচ কর্ন ফ্লাওয়ারের সাথে দুই টেবিল চামচ পানি মিশিয়ে নিন। এটা সসে দিয়ে দিন, সস ঘন হবে। এটা মিশে গেলে সসে চিকেনগুলো দিয়ে টস করে মিশিয়ে নিন যাতে সস ভালো করে মেখে যায়। ওপরে পিঁয়াজকলি কুচি দিয়ে চুলা থেকে নামিয়ে নিন। গরম গরম সার্ভ করুন।

অন্যরকম স্বাদের স্ন্যাক পোচড প্রন ইন ডিপিং সস

ranna banna o beauty tips
স্ন্যাক পোচড প্রন
দারুণ ঝাল-মশলা সহ তেলে মুচমুচে করে ভাজা খাবার পছন্দ করে না এমন মানুষ খুব কমই আছে। কিন্তু এত তেল-মশলা আদতে স্বাস্থ্যের জন্য খুব একটা ভালো নয়। খুব কম উপকরণে অন্যরকম স্বাদের একটা স্ন্যাক্স তৈরি করতে চাইলে দেখে নিতে পারেন পোচড প্রনের এই রেসিপিটি। সাধারণ ফাস্ট ফুডের মতো অস্বাস্থ্যকর নয়, বরং সেদ্ধ করা হয় বলে বেশ স্বাস্থ্যকর স্ন্যাক্স এটি। এর সাথে দেখে নিন ডিপিং সস তৈরির রেসিপিটিও।
উপকরণ

-   ১০টা মাঝারি আকৃতির চিংড়ি , পরিষ্কার করা কিন্তু লেজ রেখে দেওয়া
-   লবণ স্বাদমতো
-   ২ টেবিল চামচ ভিনেগার
-   ২ টেবিল চামচ পিঁয়াজকলি কুচি
-   ১ টেবিল চামচ আদা লম্বা করে কাটা
-   ২টা সবুজ কাঁচামরিচ
-   ১ টেবিল চামচ রাইস ভিনেগার
-   ১ টেবিল চামচ সয়াসস
-   ২ টেবিল চামচ তিলের তেল
প্রণালী

১) নন-স্টিক প্যানে ২ কাপ পানি গরম করে নিন। এতে লবণ এবং ভিনেগার দিয়ে ফুটিয়ে নিন।
২) ফুটন্ত পানিতে চিংড়িগুলো দিয়ে ২ মিনিট রান্না করুন। পানি ঝরিয়ে একটা বোলে রেখে দিন এগুলোকে।
৩) ডিপিং সস তৈরি করার জন্য ২ টেবিল চামচ পিঁয়াজকলি কুচি, আদা, কাঁচামরিচ, রাইস ভিনেগার এবং সয়াসস একটা বাটিতে নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন।
৪) নন-স্টিক প্যানে তিলের তেল গরম করে নিন যতক্ষণ না ধোঁয়া উঠতে থাকে। এরপর ডিপিং সসের সাথে এটা মিশিয়ে নিন। ৫ মিনিট রেখে দিন।
৫) পিঁয়াজকলি কুচি দিয়ে চিংড়ি গার্নিশ করে নিন। গরম গরম সার্ভ করুন ডিপিং সসের সাথে।

জেনে নিন ঘরেই দম বিরিয়ানি তৈরির প্রণালীটি

Ranna banna o beauty tips
দম বিরিয়ানি
বিরিয়ানি খেতে কে না পছন্দ করে? রেস্টুরেন্টে গেলে সবার আগে এই খাবারটির কথা মনে আসে। দক্ষিণ এশিয়ায় জনপ্রিয়  একটি খাবার এটি। সাধারণত গরু, খাসি, মুরগির বিরিয়ানি তৈরি করা হয়। রেস্টুরেন্টে গেলে বিভিন্ন নামের বিরিয়ানি কিনতে পাওয়া যায়। যেমন দম বিরিয়ানি, হায়দ্রাবাদি বিরিয়ানি ইত্যাদি। মূল উপাদান পোলাওয়ের চাল এবং মাংস হলেও মশলার ভিন্নতার কারণে এর স্বাদে ভিন্নতা পাওয়া যায়। দম বিরিয়ানি ভারতীয় খাবার হলেও বাংলাদেশে এটি বেশ জনপ্রিয়। সঞ্জীব কাপুরের রেসিপিতে জেনে নিন দম বিরিয়ানি রান্নার রেসিপিটি।
উপকরণ:

১/২ কেজি বাসমতী বা পোলাও চাল
১ কেজি খাসির মাংস
২ টেবিল চামচ আদা রসুন এবং কাঁচা মরিচের পেস্ট
১ চা চামচ কাঁচা পেঁপের পেস্ট
লবণ
১.৫ কাপ টকদই
১ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো
১.৫ চা চামচ লাল মরিচ গুঁড়ো
১ চা চামচ গরম মশলা গুঁড়ো
১/২ চা চামচ জয়ফল গুঁড়ো
১টি লেবুর রস
৪টি লবঙ্গ
৪-৫ টি এলাচি
১ চা চামচ শাহী জিরা
১ চা চামচ জিরা
৪টি মাঝারি আকৃতির আলু
৪ টেবিল চামচ পুদিনা পাতা কুচি
৪ টেবিল চামচ ধনে পাতা কুচি
১টি জয়ত্রি গুঁড়ো
১ ইঞ্চি দারুচিনি
১টি তেজপাতা
ঘি
৫টি গোলমরিচ গুঁড়ো
২টি কালো এলাচ
১ চা চামচ জাফরান ভেজানো পানি
১ কাপ পেঁয়াজ বেরেস্তা (সাজানোর জন্য)
প্রণালী:

১। প্রথমে একটি প্যানে পানি সিদ্ধ হতে দিন।
২। মাংসে লবণ, পেঁপের পেস্ট, আদা, রসুন এবং কাঁচা মরিচ পেস্ট দিয়ে মাখিয়ে নিন। এটি কমপক্ষে ৮ ঘন্টা মেরিনেট করার জন্য রেখে দিন। সম্ভব হলে সারা রাত এটি মেরিনেট করার জন্য রেখে দিন।
৩। মেরিনেট করা মাংসের মধ্যে হলুদ গুঁড়ো, মরিচ গুঁড়ো, গরম মশলা গুঁড়ো, লেবুর রস,লবঙ্গ, শাহী জিরা, তেজপাতা, জায়ফল গুঁড়ো (সামান্য), এলাচ, জিরা, পেঁয়াজ বেরেস্তা, আলু, ধনে পাতা কুচি, পুদিনা পাতা কুচি এবং টক দই দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিন।
৪। এখন সিদ্ধ করা পানির মধ্যে এক চা চামচ ঘি, আস্ত জয়ত্রি, তেজপাতা, কালো এলাচ, সবুজ এলাচ, শাহী জিরা, দারুচিনি, লবণ দিয়ে দিন।
৫। এরপর এতে পোলাও চাল দিয়ে দিন। চাল ১০-১৫ মিনিট পানিতে ভিজিয়ে নিবেন।
৬। চাল আধা সিদ্ধ হয়ে গেলে নামিয়ে ফেলুন। নামিয়ে পানি ঝরতে দিন।
৭। এখন একটি ভারী প্যানে ঘি দিয়ে দিন।
৮। ঘি গরম হয়ে এলে এতে মেরিনেইট করা মাংসগুলো দিয়ে দিন।
৯। এখন মাংসের উপর সিদ্ধ করা পানি ঝরানো চালগুলো দিয়ে দিন। মাংসের উপর পোলাও চাল লেয়ার করে দিবেন।
১০। তার উপর ধনে পাতা কুচি, পেঁয়াজ বেরেস্তা, জাফরন গোলানো পানি, সামান্য গরম মশলা গুঁড়ো, লবণ, পুদিনা পাতা এবং সামান্য ঘি ছড়িয়ে দিন।
১১। এখন প্যানটির ঢাকনার লাগিয়ে তার চারপাশে সিদ্ধ আটা দিয়ে লাগিয়ে দিন।
১২। মাঝারি আঁচে ৩৫ মিনিট রান্না করুন।
১৩। চুলা নিভিয়ে ফেলুন। ১৫ মিনিট চুলার উপর রেখে দিন।
১৪।  ব্যাস তৈরি হয়ে গেল মজাদার দম বিরিয়ানি।

 

Copyright @ 2013 রান্না-বাণ্ণা ও বিউটি টিপস.